মেরুদণ্ডের শেষ হাড়ে ব্যথা হলে

    35


    শারমিন সেদিন চেম্বারে এসে বলেন, ‘আমি শক্ত জায়গায় বসতে পারি না বা বসলে মেরুদণ্ডের শেষ হাড়ে বেশ ব্যথা হয়। কিছুতেই স্বস্তি পাচ্ছি না।’
    শারমিনের মুখে ব্যথার ছাপ স্পষ্ট। বেশ কিছু পরীক্ষার পর তাঁকে রোগ সম্পর্কে জানানো হলো। যাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় বলে ‘ককসিডাইনিয়া’, তিনি তাতেই ভুগছেন। 
    শারমিনের ভাষায়, এ এক ভয়ংকর অভিজ্ঞতা। এ রকম রোগে না ভুগলে এই অস্বস্তিকর অভিজ্ঞতা উপলব্ধি করা যায় না।

    ককসিডাইনিয়ার কারণ
    বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কারণ অজানা। তবে আঘাত, বিশেষ করে পেছনের দিকে পড়ে গেলে এমনটা হতে পারে।

    দীর্ঘদিন ধরে প্রদাহ থাকলেও হতে পারে।

    প্রসবের সময় আঘাত বা দীর্ঘ সময় ধরে প্রসব হলে।

    অনেক সময় সার্জারির কারণেও হতে পারে।

    আঁকাবাঁকা, শক্ত বা লম্বা ককসিসের কারণেও এমনটা হয়।

    এ ছাড়া পেশির সংকোচন, পাইলোনাইডাল সাইনাস, পাইলোনাইডাল সিস্ট, মেনিসকাল সিস্ট, রিপিটেটিভ স্ট্রেইন, যেমন দীর্ঘক্ষণ মোটর বা বাইসাইকেল চালানোর ফলেও এ ব্যথা হতে পারে।

    ইনফেকশন, ক্যালসিয়াম ডিপসিশন ও টিউমারও এর কারণ হতে পারে।

    লক্ষণ

    • ককসিডাইনিয়া বা মেরুদণ্ডের শেষ হাড়ের ব্যথা পুরুষের থেকে নারীদের পাঁচ গুণ বেশি হয়।
    • বসার সময় বা বসার পর ব্যথা হয়।
    • দীর্ঘক্ষণ বসলে ব্যথা বেড়ে যায়।
    • শক্ত জায়গায় বসা যায় না।
    • কখনো বসা থেকে দাঁড়াতে গেলে ব্যথা হয়।
    • আবার কখনো নরম জায়গায় বসলে ব্যথা হয়।
    • পেছনে হেলান দিয়ে বসলে বেশি ব্যথা হয়, কিন্তু সামনে ঝুঁকে বসলে ব্যথা কম হয়।
    • ককসিসের আশপাশে গভীর ব্যথা।
    • রিকশায় বসলে হাতে ভর দিয়ে কোমর আলগা করে রাখতে হয়।
    • পায়খানা করার সময় বা আগে ব্যথা হয়।
    • সহবাসের সময় ব্যথা হয়।
    • কখনো কখনো কোমর ব্যথার সঙ্গে ককসিডাইনিয়া হয়।

    চিকিৎসা

    • ব্যথা কমানোর জন্য ইলেকট্রোথেরাপি ব্যবহার করা হয়।
    • উপযুক্ত স্ট্রেসিং ও পেশি শক্তিশালী হওয়ার ব্যায়াম করতে হয়।
    • গরম সেঁক দেওয়ার ফলে ব্যথা কমে, মাংসপেশি শিথিল হয়।
    • দীর্ঘক্ষণ মোটর বা বাইসাইকেল চালানো যাবে না।
    • শক্ত জায়গায় বসা নিষেধ। নরম জায়গায় বসতে হবে।
    • বসার জন্য ককসিস কুশন ব্যবহার করতে হবে।
    • চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া, স্টেরয়েড ও লোকাল অ্যানেসথেটিক এজেন্ট ইনজেকশন দেওয়া।
    • দীর্ঘ দিন ফিজিওথেরাপি ও ওষুধ খাওয়ার পরও যদি ককসিডাইনিয়া বা মেরুদণ্ডের শেষ হাড়ের ব্যথা না কমে, সে ক্ষেত্রে ককসিস সার্জারি করাতে হবে। অতি সতর্কতার সঙ্গে ককসিস অপারেশন করতে হবে।

    লেখক: ফিজিওথেরাপি কনসালট্যান্ট অ্যান্ড জেরোন্টলজিস্ট, এক্সট্রা মাইল এইজ কেয়ার, ঢাকা





    Source link