‘কাইজার’ হয়ে হইচইয়ে প্রথমবার আফরান নিশো

14


এডিসি কাইজার চৌধুরী। একজন হোমিসাইড ডিটেকটিভ। ব্যক্তিগত জীবনে বিপর্যস্ত কাইজার ভিডিও গেমে আসক্ত। বদমেজাজি এই ডিটেকটিভ রক্ত ভয় পায়। কিন্তু ডিটেকটিভ হিসেবে তার দক্ষতার জুড়ি নেই।

এমন চরিত্র হয়ে আসছেন আফরান নিশো। তাঁকে নিয়ে হইচই তৈরি করেছে নতুন সিরিজ ‘কাইজার’। হইচইয়ে এটি নিশোর প্রথম কাজ। সিরিজটি বানিয়েছেন তানিম নূর। প্রযোজনা করেছে ফিল্ম সিন্ডিকেট। আজ প্রকাশ করা হলো কাইজার সিরিজে নিশোর লুক। সাদা-পাকা চুল-দাড়িতে একেবারেই ভিন্ন লুকে দেখা দিয়েছেন নিশো। হইচই জানিয়েছে, কাইজার সিরিজটি প্রকাশ পাবে আগামী ৮ জুলাই।

কাইজার সিরিজে আরও অভিনয় করেছেন মোস্তাফিজুর নূর ইমরান, আহমেদ রেজা রুবেল, নাদের চৌধুরী, রিকিতা নন্দিনী শিমু, শাহেদ আলী, শতাব্দী ওয়াদুদ, সুমন আনোয়ার, দীপান্বিতা মার্টিন, ইমতিয়াজ বর্ষণ, সৌম্য জ্যোতি, নাজিবা বাশার, শঙ্খ জামান, জিনাত সানু স্বাগতা, আহমেদ হাসান সানী, মোস্তাফিজ শাহীন, শিশুশিল্পী ঋদ্ধিসহ অনেকে।

কাইজার সিরিজ প্রসঙ্গে আফরান নিশো বলেন, ‘যখন তানিম নূর কাইজার প্রজেক্টটা নিয়ে আমার কাছে আসেন, তখন আমার মনে হয়েছিল, সারা বিশ্বের বাংলা ভাষাভাষি মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য কাইজারই যথাযথ মাধ্যম। কাইজার একজন জিনিয়াস ডিটেকটিভ। তার অনেক রকম সমস্যা আছে। কিন্তু জীবনের গভীরে সেও একজন মানুষ। ক্যারেক্টারটা আমাকে আকর্ষণ করেছে। আমিও কাজটা করেছি আনন্দ নিয়ে।’

‘কাইজার’ সিরিজে আফরান নিশোর লুক

কাইজার সিরিজের নির্মাতা তানিম নূর বাংলাদেশের ওটিটি মাধ্যমে পরিচিত নাম। এর আগে তিনি বেশ কিছু ওয়েব সিরিজ বানিয়েছেন। তানিম নূর বলেন, ‘কাইজার আমার ড্রিম প্রজেক্ট। ছোটবেলা থেকে আমরা ফেলুদা, তিন গোয়েন্দা, ব্যোমকেশ বা শার্লক হোমস্‌ পড়ে বড় হয়েছি। চরিত্রগুলো কলকাতা বা দেশের বাইরের প্রেক্ষাপটে গড়ে উঠেছে। কিন্তু বাংলাদেশের কোনো গোয়েন্দা চরিত্র নিয়ে খুব বেশি কাজ হয়নি। আমার স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশের একটি গোয়েন্দা চরিত্রের ফ্র্যাঞ্চাইজি তৈরি করা।’

হইচই বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর সাকিব আর খান বলেন, ‘দর্শকরা সোশ্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন মাধ্যমে হইচইতে আফরান নিশোকে নিয়ে কাজ করার কথা বলে আসছিলেন। দর্শকের এই চাহিদার কথা আমাদের মাথায় ছিল। কাইজার চরিত্রটিতে যখন পরিচালক তানিম নূর আফরান নিশোকে কাস্ট করার কথা জানালেন, তখন আমাদের মনে হয়েছে এই চরিত্রের জন্য নিশোই সেরা। বাংলাদেশের একটি ডিটেকটিভ ফ্র্যাঞ্চাইজি হিসেবে কাইজারকে দর্শকেরা সাদরে গ্রহণ করবেন বলে আমার বিশ্বাস।’





Source link