কাইজারই কি প্রথম?

23


শিরোনামের এই প্রশ্ন শুনলে পর্দার কাইজার চৌধুরী হয়তো দ্বিধাগ্রস্ত কণ্ঠে বলে বসতেন, ‘ওহ্, তাই নাকি?’

হ্যাঁ, বাংলাদেশের এই নতুন সংস্করণের (পড়ুন ওটিটি) গোয়েন্দাটির মনে দ্বিধা আছে। নিজের কাজ নিয়ে সংশয়ও আছে। আছে প্রয়োজনে ‘মুখ খারাপ’ করার অভ্যাস। এই গোয়েন্দা যেমন নিজে কাঁদতে পারে, তেমনি সুযোগ বুঝে অন্যের মুখে আনতে পারে মুচকি হাসি। আর এই সবকিছু নিয়েই ‘কাইজার’।

স্ট্রিমিং সাইট হইচই–এ গত ৮ জুলাই থেকে চলছে কাইজার চৌধুরীর প্রথম সিজনের অভিযান। ওয়েব সিরিজটির মোট পর্ব নয়টি। ঘটনার ব্যাপ্তি অনুযায়ী একেকটি পর্বের দৈর্ঘ্য নির্ধারিত হয়েছে। যেমন প্রথম পর্বটিই প্রায় ৪০ মিনিটের। আবার কোনো কোনো পর্ব ২০ মিনিটেও শেষ হচ্ছে। পুরো বিষয়টিই নির্ধারিত হয়েছে গল্পের খাতিরে। ফলে অহেতুক কখনো স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকতে হয়নি।

‘কাইজার’ পরিচালক তানিম নূরের সঙ্গে অভিনেত্রী দীপান্বিতা মার্টিন। ছবি: হইচই

শুরু থেকেই শুরু করা যাক। এডিসি কাইজার চৌধুরী এই ওয়েব সিরিজের মূল চরিত্র। তিনি একজন হোমিসাইড ডিটেকটিভ। কাইজার ব্যক্তিগত জীবনে বিপর্যস্ত। সেই সঙ্গে কাইজার ভিডিও গেম খেলায় চূড়ান্ত আসক্ত। এই গোয়েন্দার মেজাজের মতি-গতি বোঝাও একটু মুশকিল, তদন্তের প্রয়োজনে কখন যে কার গলা চেপে ধরবেন, সেটি বোঝা দায়। অথচ এই কাইজারই আবার ক্রাইম সিনে গিয়ে গলা কাটা লাশ দেখে চোখ উল্টে ফেলেন!

কাইজারের কীর্তি–কাহিনি বলার সঙ্গে সঙ্গে ওয়েব সিরিজটির নির্মাণ সম্পর্কেও দু-একটি কথা বলা উচিত হবে। ক্যামেরার কাজ ভালো। সংলাপ কিছু কিছু ক্ষেত্রে একটু অস্পষ্ট ছিল, তবে ঘটনার সঙ্গে মিলে গেছে বলে অতটা খারাপ লাগেনি। সিরিজের প্রতিটি পর্বে কলাকুশলীদের নাম দেখানোর সময় সুপরিচিত পপ কালচার আর নব্বইয়ের দশকের ঢাকার ভিডিও ফুটেজের মিশ্রণ চোখের জন্য ছিল আরামদায়ক। ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক খারাপ লাগেনি, গোয়েন্দা গল্পের জন্য মানানসই। সুরে শিহরণ যেমন ছিল, তেমনি পাওয়া গেছে বিষাদও।

‘কাইজার’ ওয়েব সিরিজের অভিনয়শিল্পীরা। ছবি: হইচই আবার কাইজারের গল্পে ফেরা যাক। সিরিজের প্রথমেই পরিচয় হয় একজন পুরোপুরি বিক্ষিপ্ত ব্যক্তিত্বের সঙ্গে। ব্যক্তিটি গোয়েন্দা হলেও ভিডিও কনসোল হাতে তাকে শুধুই একজন ‘পাগল’ গেমার বলে বিশ্বাস হয়। অপরাধের বিচার-বিশ্লেষণে যদিও সেই ব্যক্তিটিই ক্ষুরধার বেশ। সবচেয়ে বড় বিষয় গোয়েন্দা কাইজারের হিউমার টনটনে।

কাইজারে ফেলুদা এসেছে। ছিল কাকাবাবু–সন্তু বা ব্যোমকেশ বকশি থেকে আগাথা ত্রিস্টি বা আর্থার কোনান ডয়েলও। তবে কারও অন্তর্ভুক্তিই আরোপিত ছিল না, এটাই সবচেয়ে স্বস্তির। গল্প বা সংলাপের স্রোতেই সবাই এসেছে, আবার চলেও গেছে। আর এটাই কাইজারের চিত্রনাট্যের সবচেয়ে বড় গুণ। ওয়েব সিরিজে, বিশেষ করে সেটি যদি রহস্য–রোমাঞ্চভিত্তিক হয়, তবে টানটান গল্প ও চিত্রনাট্য প্রধান অস্ত্র বলে বিবেচিত ওটিটির দুনিয়ায়। এই জায়গাতে পুরোপুরি সফল কাইজার, কখনোই গল্পকে ঝুলে পড়তে দেওয়া হয়নি। ফলে নিতান্ত ঘটনাবিহীন পর্ব শেষেও কখনো মনে হবে না যে, ‘সময়টা নষ্ট হলো!’

‘কাইজার’ ওয়েব সিরিজের গুরুত্বপূর্ণ অভিনয়শিল্পীরা। ছবি: ট্রেলার থেকে সিরিজটির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন আফরান নিশো। কাইজার চরিত্রটি পর্দায় ফুটিয়ে তোলায় তিনি এককথায় অনবদ্য ছিলেন। বিচ্ছেদ হওয়া স্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথন বা দূরে থাকা মেয়ের সঙ্গে ক্ষণিকের আলাপে অথবা ইন্টারোগেশন রুমের রূক্ষতা—সবেতেই সমান তালে তাল মিলিয়েছেন নিশো। নিজের জীবনের বিক্ষিপ্ততায় বিষণ্ণ কাইজারকে পর্দায় যেমন বিশ্বাসযোগ্য করেছেন, তেমনি গোয়েন্দার ভূমিকাটিকেও কখনো অতিরঞ্জিত বা অতিনাটকীয় বোধ করাননি। নিশোরূপী কাইজার অনেক বেশি বাস্তব, কোনো সুপারম্যান নয়। আর তাতেই সার্থকতা নিশ্চিত।

‘কাইজার’ সিরিজের দৃশ্যে আফরান নিশো ও সৌম্য জ্যোতি। ছবি: ট্রেলার থেকে ‘কাইজার’ সিরিজে আরও অভিনয় করেছেন মোস্তাফিজুর নূর ইমরান, আহমেদ রেজা রুবেল, নাদের চৌধুরী, রিকিতা নন্দিনী শিমু, শাহেদ আলী, শতাব্দী ওয়াদুদ, সুমন আনোয়ার, ইমতিয়াজ বর্ষণ, শঙ্খ জামান, জিনাত সানু স্বাগতা প্রমুখ। প্রত্যেকেই যার যার চরিত্রে নিখুঁত হওয়ার চেষ্টা করেছেন। তবে আলাদা করে বলতে হয় শতাব্দী ওয়াদুদ, সুমন আনোয়ার ও ইমতিয়াজ বর্ষণের কথা। এই তিন অভিনেতা সিরিজটিকে আরও উপভোগ্য করে তুলেছেন।

‘কাইজার’ সিরিজের দৃশ্যে আফরান নিশো, শিমু ও মোস্তাফিজ নূর ইমরান। ছবি: ট্রেলার থেকে তানিম নূর সিরিজটি নির্মাণ করেছেন। নির্মাণে যে মুনশিয়ানা ও পরিমিতিবোধ আছে, তা স্বীকার করতেই হবে। প্রতিটি পর্বে ওয়েব সিরিজের ক্ল্যাসিক ফরমুলা অনুসরণ করা হয়েছে জ্ঞাতসারেই। ফলে এক পর্ব থেকে আরেক পর্বে যাওয়ার কয়েক সেকেন্ডের বিরতি কখনোই আপনাকে চোখ সরিয়ে নিতে উৎসাহিত করবে না। ‘কাইজার’–এর আগমনী সংবাদ দেওয়ার সময় তানিম বলেছিলেন যে, ‘বাংলাদেশের বা ঢাকার মৌলিক একটি গোয়েন্দা চরিত্র নিয়ে খুব বেশি কাজ হয়নি। আমার স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশের একটি গোয়েন্দা চরিত্রের ফ্র্যাঞ্চাইজি তৈরি করা।’ সেই কাজটি যে তানিম ভালোমতোই সম্পন্ন করেছেন, তা বলাই যায়।

এখন প্রশ্ন হলো, কাইজারই কি এ দেশের প্রথম সার্থক গোয়েন্দা চরিত্র? নির্দ্বিধায় ‘হ্যাঁ’ বলতে হলে কাইজারকে আরও কয়েকটা সিজন পাড়ি দিতে হবে। পরবর্তী সিজনের সম্ভাবনা প্রথম মৌসুমেই পাওয়া গেছে কিছুটা। তবে একটি কথা বলাই যায় যে, সম্ভাবনা প্রবল। আশা করা যায়, নিকট ভবিষ্যতেই আমরা হয়তো কাইজারের জীবনের পরবর্তী অধ্যায় পর্দায় রূপায়ণের খবর পাব। সেই পর্যন্ত না হয় ‘শুভকামনা’ জানিয়ে অপেক্ষায় থাকা যাক।





Source link