সাড়া কম তাই শেয়ারবাজারে কালোটাকা বিনিয়োগের সুযোগ বাতিল

24


প্রত্যাশা অনুযায়ী অপ্রদর্শিত অর্থ (কালোটাকা) বিনিয়োগে না আসায় ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে পুঁজিবাজারে কালোটাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে না।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে উত্থাপিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে এ সুবিধা তুলে দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন।

এ সময় আগামী অর্থবছরে পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত আয়ের টাকা কর দিয়ে সাদা করার সুযোগও বাতিলের প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী। 

সরকার গত বছর পুঁজিবাজারে এক বছর বিনিয়োগ রাখার শর্তে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রেখেছিল। একই সঙ্গে এই নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছিল যে, যারা অপ্রদর্শিত আয়ের টাকা বৈধ করে নেবেন তাঁদের কাছে অর্থের উৎস সম্পর্কে কোনো কর্তৃপক্ষ জানতে চাইবে না। 

টাকা সাদা করার জন্য কর হার ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করা হয়েছিল। এর বাইরে ২৫ শতাংশ প্রদেয় করের ওপর অতিরিক্ত ৫ শতাংশ জরিমানা কর আরোপ করা হয়েছিল। 

পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত আয় বৈধ করার বিধান বেশ কয়েক বছর ধরেই ছিল। কিন্তু এখনো পর্যন্ত তেমন বড় কোনো তহবিল পুঁজিবাজারে আসেনি। তাই আগামী বছর থেকে আর এ সুবিধা থাকছে না। 

তবে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির ক্ষেত্রে হ্রাসকৃত করপোরেট কর সুবিধা দেওয়া হয়েছে। পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পরিশোধিত মূলধনের ১০ শতাংশের বেশি শেয়ার আইপিওর মাধ্যমে হস্তান্তর হলে তালিকাভুক্ত কোম্পানির জন্য করহার ২২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ বা তার কম শেয়ার আইপিওর মাধ্যমে হস্তান্তরকারী তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার ২২ দশমিক ৫ শতাংশই থাকবে। 

জাতীয় বাজেট সম্পর্কে জানতে: এখানে ক্লিক করুন

এ ছাড়া, এই শর্ত পরিপালনে ব্যর্থতায় তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার ২২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে ২৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। 

অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতা অনুযায়ী, পাবলিকলি ট্রেডেড বা শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার বর্তমানে সাড়ে ২২ শতাংশ। এটি কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে।

এই সম্পর্কিত পড়ুন:





Source link