রাজশাহীতে ইসলামী ব্যাংকের ‘ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তা সম্মেলন’

38


ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের আয়োজনে রাজশাহীতে ‘ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তা সম্মেলন’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শনিবার রাজশাহীর একটি হোটেলে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। ইসলামী ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুলের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংক, রাজশাহী অফিসের নির্বাহী পরিচালক জীবন কৃষ্ণ রায়। 

স্বাগত বক্তব্য দেন ইসলামী ব্যাংকের রাজশাহী জোন প্রধান মো. মিজানুর রহমান মিজি। আরও বক্তব্য দেন এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মিফতাহ উদ্দিন। ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. মাকসুদুর রহমান, ব্যাংকের নির্বাহী ও রাজশাহী জোনের অধীন শাখাগুলোর ব্যবস্থাপকরা সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। 

ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন সপুরা এগ্রোর ম্যানেজিং পার্টনার মো. সাজ্জাদ আলী, এস এস মৎস খামারের স্বত্বাধিকারী মো. গোলাম সাকলায়েন, পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের গ্রাহক শ্রীমতি রেবা রাণী সরকার, নাটোর ড্রাগন ফ্রুট গার্ডেনের স্বত্বাধিকারী মো. গোলাম নবী এবং মিনু সিল্ক গার্মেন্টস অ্যান্ড বুটিকের স্বত্বাধিকারী মোছা. তাহমিনা আখতার। 

সম্মেলনে রাজশাহী অঞ্চলের ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তাগণের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী ক্ষুদ্র ও এসএমই গ্রাহকদের পণ্য প্রদর্শনী করা হয়। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির প্রধান অতিথির ভাষণে বলেন, ‘ক্ষুদ্র, কুটির ও ছোট বিনিয়োগ দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও টেকসই উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ইসলামী ব্যাংক এই উন্নয়নে সহযোগী হিসেবে আর্থিক সেবা দেওয়ার মাধ্যমে অবদান রেখে চলেছে।’ 

কোভিড-১৯ এর সময়ে ইসলামী ব্যাংকের ভূমিকার প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘প্রণোদনার প্যাকেজের অর্থ বিতরণে এই ব্যাংক চমৎকার কাজ করেছে। এসএমই খাতে গ্রাহকদের প্রতি ব্যাংকের দীর্ঘমেয়াদি অব্যাহত আর্থিক সেবা জরুরি।’ তিনি ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তাদের নিয়মিত ঋণ পরিশোধের মাধ্যমে ব্যবসায় প্রসারে আরও বেশি মনযোগ দিয়ে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান। 

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা সভাপতির বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি সম্পন্ন ইকোনমির দেশ হিসবে স্বীকৃত। ইসলামী ব্যাংক শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংক ব্যবস্থার সফল বাস্তবায়ন, আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তা উন্নয়ন, শিল্পায়ন, প্রবাসী সেবা, গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রেখে চলেছে। 

ইসলামী ব্যাংকের পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প (আরডিএস) গ্রামীণ জনপদে জামানতবিহীন বিনিয়োগ দেওয়ার মাধ্যমে জীবন জীবিকার উন্নয়নে সমন্বিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ইসলামী ব্যাংকের শাখা, উপ-শাখা ও এজেন্ট আউটলেটের মাধ্যমে ৪৯০টি উপজেলার ২৯ হাজার ৪৬৮টি গ্রামে এ প্রকল্প পরিচালিত হচ্ছে। 

আরডিএসের সদস্য সংখ্যা ১৫ লাখের বেশি, যার ৯২ শতাংশই নারী। এরই মধ্যে এ প্রকল্পের আওতায় ব্যাংকের ১০১টি এজেন্ট আউটলেটের মাধ্যমে ১১০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।





Source link