বিকাশ পেমেন্টে কেনা যাচ্ছে কোরবানির পশু

42


প্রথমবারের মতো ঢাকার হাটে সব ধরনের ডিজিটাল পেমেন্টের মাধ্যমে কোরবানির পশু কেনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন পরিচালিত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট হাট’ উদ্যোগে সহজেই বিকাশ পেমেন্টে কোরবানির পশুর মূল্য ও হাসিল পরিশোধের সুযোগ পাচ্ছেন গ্রাহকেরা। 

পরীক্ষামূলকভাবে এবার ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ ছয়টি হাট–গাবতলী, বসিলা, আফতাবনগর, ভাটারা, কাওলা ও উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরে ক্যাশ টাকা ছাড়াই বিকাশ পেমেন্টে কোরবানির পশু কেনার সুযোগ রাখা হয়েছে। যারা হাটে গিয়ে পছন্দ করে কোরবানির পশু কিনতে চান, তাদের জন্য বিকাশ পেমেন্ট এনেছে বাড়তি সুবিধা। অন্যদিকে বিক্রেতারাও তাদের বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টে আসা টাকা এজেন্ট থেকে খরচ ছাড়াই ক্যাশ আউট করতে পারছেন কিংবা সরাসরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পেয়ে যাচ্ছেন। এ ছাড়া ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েরই ক্যাশ আউট সেবা নিশ্চিত করতে হাটে উপস্থিত থাকছেন বিকাশ এজেন্টরা। 

হাট ইজারাদার, ক্রেতা ও বিক্রেতার ডিজিটাল পেমেন্টের পরিপূর্ণ সেবা নিশ্চিত করতে প্রথমবারের মতো হাসিল ব্যবস্থাপনাকেও ডিজিটাল করা হয়েছে। যারা ক্যাশ টাকা ছাড়া বা ক্যাশ দিয়ে পশু কিনবেন উভয়েই হাসিলের অর্থ বিকাশেই পরিশোধ করতে পারবেন। হাটের বিভিন্ন স্থানে দেওয়া বিকাশের কিউআর কোড স্ক্যান করে খুব সহজেই হাসিল পরিশোধ করতে পারবেন গ্রাহক। অন্যদিকে ইজারাদারও তার বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টে আসা টাকা এজেন্টের কাছ থেকে কোনো খরচ ছাড়াই ক্যাশ আউট করতে পারছেন কিংবা সরাসরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে নিয়ে যেতে পারছেন। বিকাশে হাসিল পরিশোধের সুযোগ পুরো হাট ব্যবস্থাপনাকে আরও সহজ করেছে। পাশাপাশি ইজারাদারের হাসিলের হিসাব রাখা সহজ ও স্বচ্ছ হয়েছে। 

বিক্রেতা ও হাট ইজারাদারদের সহজেই বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে হাটেই ‘পার্সোনাল রিটেইল অ্যাকাউন্ট’ খোলার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুসারে, হাটের জন্য খোলা এই বিশেষ অ্যাকাউন্টগুলোর ক্যাশ আউটের দৈনিক লেনদেন সীমা প্রযোজ্য হবে না এবং মাসিক লেনদেন সীমা ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০ লাখ করা হয়েছে। একইভাবে পেমেন্টের ক্ষেত্রেও মাসিক লেনদেন সীমা ৫ লাখ থেকে ১০ লাখ টাকা করা হয়েছে। ১২ জুলাইয়ের পর এই নির্দেশনা অনুসারেই আবার দৈনিক লেনদেন সীমা পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসবে। 

উল্লেখ্য, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ, হাটকেন্দ্রিক ক্যাশ টাকার নির্ভরতা কমানো, ক্রেতা ও বিক্রেতাদের টাকার নিরাপত্তা ও প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড ঠেকাতে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট হাট’ পাইলট প্রকল্প পরিচালনা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন সহযোগী হিসেবে রয়েছে। এই হাটগুলোর প্রত্যেকটিতে এমএফএস পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে রয়েছে দেশের বৃহত্তম মোবাইল আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ। 





Source link