চার গুণ দামে এলএনজি কিনে ধুঁকছে পেট্রোবাংলা

29


তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির ক্ষেত্রে ‘দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি’ বা লং-টার্ম কন্ট্রাক্ট আন্তর্জাতিক বাজারে একটি অতি পরিচিত পদ্ধতি। এই পদ্ধতির বড় সুবিধা হলো, বাজারে স্বল্প মেয়াদে দাম ওঠানামা করলেও চুক্তিতে নির্ধারিত দামেই গ্যাস পাবে ক্রেতা। কিন্তু এই সুযোগ হেলায় ফেলে স্পট মার্কেট থেকে চার গুণ বেশি দামে এলএনজি আমদানি করছে পেট্রোবাংলা। বেশি দামে এলএনজি কেনার প্রভাব এরই মধ্যে পড়তে শুরু করেছে দেশের গ্যাস ও বিদ্যুৎ খাতে। ভর্তুকির চাপ কমাতে সরকার গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছে, যার কারণে ফিরে আসছে লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা। শুধু তা-ই নয়, এলএনজির পেছনে ব্যয় হওয়া অতিরিক্ত খরচ পুষিয়ে নিতে গ্যাসের দামও বাড়াতে চায় সরকার।

পেট্রোবাংলার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০২১ সালের জুলাই মাসে দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির আওতায় প্রতি মিলিয়ন ব্রিটিশ থারমাল ইউনিট (এমএমবিটিইউ) এলএনজি ৯ দশমিক ২০ মার্কিন ডলারে কিনেছিল পেট্রোবাংলা। তবে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে তা কিনতে হয়েছে ১৩ দশমিক ৩২ ডলারে। ইউনিটপ্রতি দাম বেড়েছে ৪ দশমিক ১২ ডলার। 
অন্যদিকে একই সময়ে এশিয়ার স্পট মার্কেটে এলএনজির দাম বেড়েছে প্রায় চার গুণ। স্পট মার্কেটে গত বছরের জুলাই মাসে প্রতি এমএমবিটিইউ গ্যাসের দাম ছিল ১০ দশমিক ৯৯ মার্কিন ডলার। অথচ চলতি বছরের এপ্রিল মাসে সেই দাম বেড়ে হয়েছে প্রতি ইউনিট ৩৮ দশমিক ৯৩ মার্কিন ডলার। আমদানি-নির্ভরতার কারণে এই দামেই এলএনজি কিনতে হয়েছে পেট্রোবাংলাকেও।

গ্যাসের সমস্যা সমাধানে এলএনজির ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীলতার জন্য নীতিনির্ধারকদের অদূরদর্শিতা ও পরিকল্পনার অভাবকেই দায়ী করেছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ইজাজ হোসেন। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, ‘স্পট মার্কেটে এলএনজির দাম একসময় কম থাকায় নীতিনির্ধারকেরা দীর্ঘমেয়াদি সরবরাহ চুক্তিতে অবহেলা করেছিলেন। স্পট মার্কেটে কম দামে পেলে কেন আমরা বেশি দামে দীর্ঘমেয়াদি টার্মে এলএনজি কিনতে যাব—এমনই ছিল তাঁদের মনোভাব। তাঁরা তখন বুঝতেই পারেননি যে স্পট মার্কেটের কম দাম ক্ষণস্থায়ী। স্পট মার্কেটের দামের ওপর নির্ভর না করতে আমরা বারবার বললেও পেট্রোবাংলা আমাদের কথায় কর্ণপাত করেনি। এখন তাঁরা এলএনজি আমদানিতে ব্যয় হওয়া অতিরিক্ত খরচ ওঠাতে গ্যাসের দাম বাড়াতে চায়। কিছু কিছু বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহও বন্ধ করে দিয়েছে।’

সুযোগ থাকা সত্ত্বেও কেন দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি না করে স্পট মার্কেট থেকে বেশি দামে এলএনজি ক্রয় করছেন? এই প্রশ্নের জবাবে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমরা যখন এলএনজি সরবরাহের জন্য দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি করি, তখন স্পট মার্কেটের দাম দীর্ঘমেয়াদি সরবরাহের চেয়ে অনেক কম ছিল। আমাদের অভিজ্ঞতার ঘাটতি বলেন বা যা-ই বলেন স্পট মার্কেটের দাম বেড়ে আকাশে উঠবে –এটা আমাদের ধারণার বাইরে ছিল।’

স্থানীয় উৎস থেকে গ্যাস অনুসন্ধানের ব্যাপারে জানতে চাইলে নাজমুল আহসান বলেন, ‘অতীতে অফশোর ও অনশোরে গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য আমরা বিভিন্ন সময় টেন্ডার আহ্বান করলেও প্রত্যাশিত সাড়া পাইনি। অনশোরে গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য আমরা কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি, যা শিগগিরই দৃশ্যমান হবে।’

দেশের অর্থনীতির আকার বড় হওয়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গ্যাসের চাহিদা। গ্যাসের জোগানদাতা প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলা ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে অভ্যন্তরীণ উৎস খোঁজার পরিবর্তে ঝুঁকছে আমদানিনির্ভর এলএনজির দিকে। এই আমদানিনির্ভরতা দেশের সার্বিক অর্থনীতির ওপর ভালো ফল বয়ে আনবে না–এমন সতর্কবার্তা শুরু থেকেই দিয়ে এসেছেন বিশ্লেষকেরা। ২০২১ সালের ডিসেম্বরে প্রকাশিত ইনস্টিটিউট ফর এনার্জি ইকোনমিকস অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল অ্যানালাইসিসের এক গবেষণা প্রতিবেদনে বিশ্ববাজারে এলএনজির দাম বাড়ার কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতির ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। 

চার গুণ দামে এলএনজি কিনে ধুঁকছে পেট্রোবাংলা

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘এলএনজির দাম বাড়ার কারণে গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল দেশীয় রপ্তানিমুখী খাতগুলো আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতার সক্ষমতা হারাবে এবং সর্বোপরি জ্বালানি সরবরাহে অনিশ্চয়তা দেখা দেবে।’

বাংলাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়বে। বেশি দামে গ্যাস ক্রয় করতে গিয়ে একদিকে সরকারের ওপর ভর্তুকির চাপ বাড়বে, অন্যদিকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে টান পড়বে—এমন সতর্কবার্তাও দেওয়া হয়েছিল ওই প্রতিবেদনে।

বর্তমান পরিস্থিতি তাদের সতর্কবার্তারই প্রতিফলন বলা যায়। বিশ্ববাজারে এলএনজির দাম বাড়ার কারণে পেট্রোবাংলার অবস্থা এখন চিড়েচেপ্টা। সংস্থাটি একদিকে সরকারের দিক থেকে ভর্তুকির কমানোর চাপে আছে। অন্যদিকে বেশি দামে এলএনজি ক্রয় করতে হচ্ছে তাদের। ২০২১-২২ অর্থবছরে এলএনজি আমদানির জন্য পেট্রোবাংলাকে দেওয়া সরকারের ভর্তুকির পরিমাণ ছিল ৪ হাজার কোটি টাকা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পেট্রোবাংলার এক কর্মকর্তা আজকের পত্রিকাকে বলেন, সামনের অর্থবছরে ভর্তুকির পরিমাণ আরও বাড়বে। 
স্পট মার্কেটে এলএনজির দাম বাড়ার মধ্যেই মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে কাতারের রাসগ্যাস এবং ওমানের ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল এলএনজি কর্তৃক কার্গো সরবরাহ কমানোর আভাস। মধ্যপ্রাচ্যের এই দুই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ১৫ বছর মেয়াদি এলএনজি সরবরাহ চুক্তি করেছিল পেট্রোবাংলা।

চুক্তির আওতায় প্রতিষ্ঠান দুটি পেট্রোবাংলাকে বছরে ৩২ লাখ এমএমবিটিইউ ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ৬৪ কার্গো এলএনজি সরবরাহ করার কথা। চলতি বছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত সরবরাহ করেছে ৫৩ কার্গো। এর আগে এলএনজির বাজার স্থিতিশীল থাকায় ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬৮ কার্গো এলএনজি সরবরাহ করেছিল তারা।

পেট্রোবাংলা গ্যাসের বড় অংশই সরবরাহ করে বিদ্যুৎ খাতে। বিদ্যুৎ বিভাগ জানিয়েছে, মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের ৪২ শতাংশ আসে গ্যাসচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে। গ্যাসের ওপর চাপ কমাতে সরকার গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছে। এ কারণে দেশের বিভিন্ন জায়গায় লোডশেডিং করতে হচ্ছে।

পেট্রোবাংলা এলএনজি গ্যাস আমদানি শুরু করে ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বরে। বিশ্ববাজারে এলএনজির দাম বাড়তে শুরু করে ২০২১ সাল থেকে। গত বছরের শেষের দিকে করোনা মহামারির অভিঘাত কাটিয়ে ওঠার চেষ্টায় বিশ্ব অর্থনীতির চাকা আবারও ঘুরতে শুরু করলে এলএনজির দাম চড়তে শুরু করে।

জ্বালানি তেল ও গ্যাসের তথ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এসঅ্যান্ডপি গ্লোবাল কমোডটি ইনসাইটসের মতে, ২০২০ সালের অক্টোবরে এশিয়ার বাজারে স্পট মার্কেটে প্রতি এমএমবিটিইউ এলএনজির দাম ছিল মাত্র ৬ মার্কিন ডলার। পরবর্তী সময়ে দাম বাড়তে বাড়তে ২০২১ সালের অক্টোবরে প্রতি এমএমবিটিইউ ৫৬ দশমিক ৩২৬ মার্কিন ডলারে ঠেকে। আর ২০২২ সালের এপ্রিলে দাম বেড়ে দাঁড়ায় প্রতি এমএমবিটিইউ ৫৯ ডলার। স্পট মার্কেট থেকে গ্যাস কেনার কারণে দাম বাড়ার ঘা সইতে হচ্ছে পেট্রোবাংলাকেও।

দীর্ঘমেয়াদি চুক্তিতে এলএনজি ক্রয় 
পেট্রোবাংলা ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির আওতায় কাতার রাসগ্যাস এবং ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল থেকে ৫৩টি কার্গোতে করে ১৬ কোটি ৮৭ লাখ ৩৩ হাজার ৪৫৮ এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানি করে। এতে খরচ পড়ে ১৭৭ কোটি ৪৮ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। এর মধ্যে কাতারের রাসগ্যাস থেকে ৩৭টি কার্গোতে করে ১১ কোটি ৭৭ লাখ ৮৫ হাজার ৯৫৪ এমএমবিটিইউ এলএনজি কেনা হয়। এতে খরচ পড়ে ১২৮ কোটি ৭৭ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। অন্যদিকে ওমানের ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল থেকে ১৬টি কার্গোতে করে ৫ কোটি ৯ লাখ ৪৭ হাজার ৫০৪ এমএমবিটিইউ গ্যাস আমদানি করা হয়। এ জন্য পেট্রোবাংলাকে গুনতে হয় ৪৮ কোটি ৭১ লাখ মার্কিন ডলার।

স্পট মার্কেট থেকে ক্রয় 
স্পট মার্কেটে ২০২১ সালের জুলাই মাসে প্রতি এমএমবিটিইউ এলএনজির মূল্য ছিল ১০ দশমিক ৯৯ মার্কিন ডলার। কিন্তু ৯ মাসের ব্যবধানে চলতি বছরের এপ্রিলে এসে প্রতি ইউনিট এলএনজির দাম বেড়ে দাঁড়ায় ৩৮ দশমিক ৯৩ মার্কিন ডলার।

 স্পট মার্কেটে পেট্রোবাংলাকে এলএনজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে ভিটল এশিয়া, এক্সিলারেট এনার্জি এলপি, এওটি ট্রেডিং এজি এবং টোটাল এনার্জিস গ্যাস অ্যান্ড পাওয়ার। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ৪ কোটি ২৩ লাখ ৪৮ হাজার ৩০৩ এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানি করেছে পেট্রোবাংলা। ১৩টি কার্গোতে করে এসব গ্যাস আসে। এতে আমদানি খরচ পড়ে ১৪৩ কোটি ৩৫ লাখ ৩০ হাজার ডলার। আরও চারটি এলএনজি কার্গো স্পট মার্কেট থেকে ক্রয় করার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করে ফেলেছে পেট্রোবাংলা। সংস্থাটি জানিয়েছে, জুন ও জুলাই মাসে এই চার কার্গো পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

হুমকির মুখে পড়বে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি 
স্পট মার্কেট থেকে বেশি দামে এলএনজি ক্রয়ের কারণে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হুমকির মুখে পড়তে পারে—এমন আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে ইনডিপেনডেন্ট কমোডটি ইন্টেলিজেন্স সার্ভিসেসের আইসিআইএস এলএনজি গ্লোবাল সাপ্লাই অ্যান্ড ডিমান্ড আউটলুক-২০২২ প্রতিবেদনে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘২০২২ সালে এই তিন দেশে স্পট মার্কেট থেকে এলএনজির চাহিদা ৪ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়ে ৩৯ দশমিক ৪ মিলিয়ন টন হবে। কাতারের রাসগ্যাস ও ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল চুক্তি অনুযায়ী এলএনজি সরবরাহ করতে না চাওয়ায় বাংলাদেশে গ্যাস-সংকট দেখা দেবে।’

চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি প্রকাশিত শুক্রবার ইন্টেলিজেন্স প্রকাশিত ‘২০২২ আউটলুক: গ্লোবাল লিকুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস’ রিপোর্টে বলা হয় বাংলাদেশে দিন দিন গ্যাসের মজুত কমে যাওয়ায় ও বিদ্যুৎ উৎপাদনে তেল ও কয়লার ওপর নির্ভরশীলতা কমানোর ফলে আমদানি করা গ্যাসের দাম বাড়বে। 





Source link