রপ্তানি বন্ধ হলে আমও যাবে, ছালাও যাবে: প্রধানমন্ত্রী

24


তৈরি পোশাকসহ অন্যান্য পণ্য রপ্তানির বিষয় তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কয়েক দিন আগে দেখতে পাচ্ছি গার্মেন্টস শ্রমিকেরা আন্দোলন করে। আন্দোলন করে ঠিক আছে। কিন্তু যেসব দেশ আমাদের তৈরি পোশাক কিনবে, আমরা ভালো সুবিধা পাচ্ছি, উৎপাদন বাড়ছে, ওই সমস্ত শ্রমিকদের বেতন তো বন্ধ হয়নি। আমরা তো নিজেরা প্রণোদনা প্যাকেজ দিয়েছি, টাকা দিয়েছি। ভর্তুকি দিয়ে পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা যাতে বেতনটা সরাসরি পায়, সেই ব্যবস্থাটা করেছি। সরাসরি ফোনের মাধ্যমে টাকা দিয়েছি। মালিকদের হাতে তো দিইনি।’ 

আজ মঙ্গলবার ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বেতন বাড়ানো, এটা-সেটাসহ নানা ধরনের আন্দোলন করতে যায়। এই রপ্তানি যদি বন্ধ হয়, তাহলে পোশাক কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে। তখন আমও যাবে, ছালাও যাবে। বেতন আর বাড়বে না, তখন চাকরিই চলে যাবে। ঘরে ফিরে যেতে হবে। তখন কী করবে?’ 

এই আন্দোলনে যে নেতারা উসকানি দিচ্ছেন, তাঁরা কাদের প্ররোচনায় দিচ্ছেন, তাও ভেবে দেখতে হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমি খুব খোলাখুলি বাস্তব কথাটাই বললাম। কারণ যারা কিনবে, ক্রয় ক্ষমতাও নেই। ক্রয়ক্ষমতাও সীমিত হয়ে যাচ্ছে। দিনে দিনে আরও খারাপ হচ্ছে। আমরা আমেরিকা, ইউরোপসহ বিভিন্ন জায়গায় পাঠাই। প্রত্যেক জায়গায় জিনিসের দাম বেড়ে গেছে। সেখানে মানুষ দুরবস্থায় আছে, কত মানুষ না খেয়ে দিন কাটাচ্ছে। সেই তুলনায় বাংলাদেশে সকলের খাদ্য, টিকা, ওষুধসহ সবকিছু দিয়ে যেতে পারছি।’ 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কেউ অশান্ত পরিবেশ সৃষ্টি করলে আমি বলব, শেষে এ কূল-ও কূল, দুই কূল হারাতে হবে। এটাও সবাইকে মনে রাখতে হবে।’ 

আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরই দেশে স্থিতিশীলতা এসেছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আজকে আমরা আন্দোলন, সংগ্রাম, জেল-জুলুম যা-ই ভোগ করি না কেন, দেশে স্থিতিশীলতা আমরাই আনতে পেরেছি। তার পরেও বারবার প্রচেষ্টা, কী? আমাদের সরকারকে উৎখাতই করতে হবে।’ 

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরে এই প্রথম ২০০৮ সালের নির্বাচনের পরে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে বলেই দেশের উন্নতি হয়েছে বলে জানান সরকারপ্রধান। ক্ষমতায় থেকে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপনের সুযোগ দেওয়ায় জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। 

করোনাভাইরাসের কারণে বৈশ্বিক মন্দা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে উন্নত দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছে বলে জানান শেখ হাসিনা। ইউরোপ ও আমেরিকায় মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে বলেও জানান তিনি। ওই সব দেশে দ্রব্যমূল্য বেড়েছে বলেও জানান তিনি। 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ইংল্যান্ডের মানুষ তিন বেলা খেত, এখন এক বেলা খাবার বাদ দিয়েছে। তাদের বিদ্যুতের ব্যবহার সীমিত আকারে করতে বলা হয়েছে, ভোজ্যতেল এক লিটারের বেশি কেউ কিনতে পারবে না, এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া আছে।’ 

বাংলাদেশে ভর্তুকি দিয়ে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা হচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রণোদনা প্যাকেজ দিয়েছি। রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলারে তুলেছিলাম। সেই টাকা ভেঙে ভেঙে বিদ্যুৎ, গ্যাস, কৃষি ও স্বাস্থ্যের জন্য ভর্তুকি এবং সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি। কারণ এইভাবে কোনো দেশ করেনি।’ 

বিনা মূল্যে করোনার টিকা ও করোনা পরীক্ষা করার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘তার পরেও কেউ যদি গোলমাল করার চেষ্টা করে, আর দেশটা একেবারে স্থবির হয়ে যায়, সাধারণ মানুষের কী অবস্থাটা হবে?’ 

গ্রামের মানুষের অবস্থা এখনো অনেক ভালো আছে বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘সেটা যাতে ভালো থাকে সেই দিকে বিশেষ দৃষ্টি দিচ্ছি। যে কারণে আমি আহ্বান করেছি, এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদি না থাকে। কারণ, বিশ্বব্যাপী খাদ্যাভাব, খাদ্যমন্দা। সেখানে আমাদের নিজের মাটি আছে, মানুষ আছে, ফসল ফলাতে হবে। নিজের খাবারের ব্যবস্থাটা অন্তত আমরা নিজেরা করব।’ 

আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সঞ্চালনা করেন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। 





Source link