বাড়িতেই সবচেয়ে বেশি সহিংসতার শিকার হয় শিশুরা: জরিপ

20


বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বেই শিশুদের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ স্থান ভাবা হয় তার বাড়িকে ৷ অথচ সাম্প্রতিক এক জরিপ বলছে আমাদের দেশে বাড়িতেই সবচেয়ে বেশি সহিংসতার শিকার হচ্ছে শিশুরা। জরিপে প্রাপ্ত তথ্য থেকে দেখা গেছে যে, ঘরেই শতকরা ৯৫.৮ জন শিশু নির্যাতিত হচ্ছে নানাভাবে। শিশুরা পরিবারে সবচেয়ে বেশি নিপীড়নের শিকার হয় বাবা-মা ও অভিভাবকদের দ্বারা। শান্তি ও নিয়মানুবর্তিতার কথা বলে শিশুর ওপর এই নিপীড়ন চালানো হয়।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় বেসরকারি সংস্থা ইনসিডিন বাংলাদেশ আজ সিরডাপ মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশে শিশুর প্রতি সহিংসতা পরিস্থিতি’ শীর্ষক এই জরিপ রিপোর্টটি উপস্থাপন করে। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম অনুষ্ঠানে সভা প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে সরকারি বিভিন্ন দপ্তর, মন্ত্রণালয় এবং বেসরকারি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে গবেষণার মূল বিষয় উপস্থাপন করা হয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ঘরের বাইরে, কাজের জায়গা বা অন্য যেকোনো প্রতিষ্ঠানে শিশু যতোটা নির্যাতিত হচ্ছে, এর চেয়ে বেশি নির্যাতিত হচ্ছে নিজ গৃহে। প্রতিবন্ধী শিশুরাও শুধুমাত্র প্রতিবন্ধীতার কারণে পরিবারে ও সমাজে নিগৃহীত হচ্ছে। এ ছাড়া পর্নোগ্রাফিতে শিশুদের প্রবেশাধিকারের বিষয়টিও জরিপে উঠে এসেছে। জরিপে অংশগ্রহণকারী শতকরা ৯৫.৩ জন শিশু জানিয়েছে যে তারা জীবনের কোনো না কোনো সময় ঘরে, বাইরে, স্কুলে বা কর্মক্ষেত্রে সহিংসতার শিকার হয়েছে। এর মধ্যে শতকরা ৯৬.২ জন মেয়েশিশু এবং শতকরা ৯৪.৫ জন ছেলেশিশু। 

জুন ২০২০ থেকে মে ২০২১ পর্যন্ত মোট ১১টি জেলায় এই জরিপ চালানো হয়। জেলাগুলো হচ্ছে ঢাকা, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, যশোর, ঝিনাইদহ, খুলনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালি, কুমিল্লা ও রাঙামাটিতে এই জরিপটি চালানো হয়েছে। মোট ৫০৭৪ জন শিশুর ওপর জরিপটি চালানো হয়। এদের মধ্যে শহরের ৩১৩৪ জন শিশু ও গ্রামের ১৯৪০। 

জরিপে অংশ নেওয়া শতকরা ৮৬.৯ জন শিশু জানায় তারা গৃহে শারীরিকভাবে সহিংসতার শিকার হচ্ছে, বাসায় থাকা শিশুরা জানিয়েছে ‘শাস্তিমূলক ব্যবস্থার’ নামে তাদের ওপর অত্যাচার করা হয়। অন্যদিকে প্রায় শতকরা ৮১ জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ বলেছেন সন্তান যদি বাবা-মায়ের অবাধ্য হয়, তাহলে তারা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে শিশুকে শারীরিক শাস্তি দেওয়ার পক্ষে। এ ক্ষেত্রে ছেলে শিশুরা মেয়ে শিশুদের চাইতে শারীরিক শাস্তি বেশি ভোগ করে। ছেলেশিশু শতকরা ৮৮.৪ আর মেয়েশিশু ৮৪.১। শতকরা ৫৫ জন শিশু জানিয়েছে যে তারা পরিবারের ভেতরেই যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। গৃহে মেয়েশিশুর (৫০%) চেয়ে ছেলেশিশুই (৬০ %) বেশি যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। 

শিশুকে শারীরিকভাবে অত্যাচার করার মধ্যে পড়ে হাত, জুতা, বেল্ট, বোতল দিয়ে মারা, লাথি কাটা, টানা হেঁচড়া করা, চুল টানা, দাঁড় করিয়ে রাখা, হাঁটু গেড়ে বসিয়ে রাখা, শরীর পুড়িয়ে দেওয়া, অতিরিক্ত শ্রম করানো এবং ভয় ঝাঁকি দেওয়া, ছুড়ে ফেলা, চিমটি দেখানো।

জরিপে অংশ নেওয়া শতকরা ৮২ জন শিশু জানায় তারা নির্যাতিত হচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক শিশু অর্থাৎ শতকরা ৮৬.১ জন শিশু ইমোশনালি বা মানসিকভাবে নিপীড়িত হচ্ছে। শতকরা ৮২ জন শারীরিক সহিংসতার শিকার হয় আর ২৪.১ শতাংশ শিশু যৌন হয়রানির শিকার হয়।

ইমোশনাল হয়রানির মধ্যে পড়ে ছোট করা, আজেবাজে নামে ডাকা, ভয় দেখানো, গালাগালি করা, হুংকার দেওয়া, ইয়ার্কি করা, বুলিং করা, শারীরিক ত্রুটি নিয়ে ঠাট্টা করা, সামাজিকভাবে হেয় করা, সমালোচনা করা, অভিশাপ দেওয়া, লজ্জা দেওয়া, অবহেলা করা। এই হয়রানিগুলো শিশুকে মানসিক ও শারীরিকভাবে বড় হতে দেয় না। 

শতকরা ৬৭.১ জন ঘরের বাইরে বা এলাকায় বিভিন্নধরণের সহিংসতার শিকার হয়। এর মধ্যে ৮৪.৬ শতাংশ শিশুকে ইমোশনালি হয়রানি করা হয়, শারীরিকভাবে হয়রানি করা হয় ৬৭.১ জনকে এবং যৌন হয়রানির শিকার হয় ২৪.১ শতাংশ। শতকরা ৫৫.৩ জন শিশুকে কর্মক্ষেত্রে সহিংসতার শিকার হতে হয়। এর মধ্যে শতকরা ৭২ জন ইমোশনালি হয়রানির শিকার হচ্ছে, শারীরিক নিপীড়ন শতকরা ৫৫.৩ এবং যৌন হয়রানি শতকরা ৩৭.৮ জন। এদের মধ্যে মেয়েশিশু ৩৯.৩ এবং ছেলেশিশু ৩৬.৬ জন।

শতকরা ২৬.৯ জন শিশু এমন প্রতিষ্ঠানে সহিংসতার শিকার হচ্ছে, যেখানে তারা অবস্থান করে বা সেবা গ্রহণ করে। এখানে বসবাসরত ১১.৯ মেয়েরাই শুধু যৌন হয়রানির কথা বলেছে।

এই যে পরিবারে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, পাড়া বা মহল্লায় এবং কর্মক্ষেত্রে শিশুরা যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে, তাহলে কেন তারা এই বিষয়ে মুখ খোলে নাই, এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে শতকরা ৬১.৭ জন বলেছে যে লজ্জা এবং বাবা-মা ও অভিভাবকের ভয়ের কারণে মুখ খোলেনা। শতকরা ৫২.৭ জন বলেছে যে তারা তখন বুঝতে পারেনি যে তাদের প্রতি যৌন হয়রানি করা হচ্ছে। অপরাধী হুমকি দেওয়ার কারণে চুপ থেকেছে ৩০.১ ভাগ শিশু। যৌন অপরাধ যারা করে, তারা স্নেহ ও ভালোবাসার ছদ্মাবরণে এটা করে বলে জানিয়েছে ১৬.২ ভাগ শিশু। ১৫.৬ জন শিশু বলেছে তারা ঠিক জানেনা পরিবারের বাইরে কোথায় গিয়ে এই বিষয়ে অভিযোগ জানাতে হয়।

ছাত্রছাত্রী দুজনেই বলেছে সাধারণ শিক্ষক/শিক্ষিকারাই সবচেয়ে বেশি তাদের ওপর নিপীড়ন করে। তবে এর বাইরে আছে প্রধান শিক্ষক,  শরীরচর্চা শিক্ষক, ধর্ম শিক্ষক, গার্ড, অন্য স্টাফ এবং কোন কোন ক্ষেত্রে পরিচালনা পর্ষদের কেউ কেউ। সমাজে বা ঘরের বাইরে প্রতিবেশী, চাকরিদাতা, সঙ্গীসাথি, শিক্ষক, অপরিচিত ব্যক্তি, দোকানদার এবং আইন রক্ষাকারী সংস্থার লোক শিশুদের হয়রানি করে। আর যেসব শিশু কাজ করে বা কর্মজীবী তারা বলেছে তাদের সঙ্গী, মালিক, মালিকের পরিবারের লোকজন, নিরাপত্তা রক্ষী এবং সুপারভাইজাররা তাদের ওপর অত্যাচার করে।

এছাড়াও এনজিও দ্বারা পরিচালিত প্রতিষ্ঠানেও শিশুরা অন্য বয়স্ক শিশু, স্টাফদের দ্বারা নিপীড়িত হয়। এর মাধ্যমে এটাই প্রমাণিত হয়েছে যে শিশু বিষয়ক নিরাপত্তা নীতি বা পলিসি এখানেও কাজ করছে না। 

শতকরা ৬২.১ জন প্রতিবন্ধী শিশু বলেছে শুধুমাত্র প্রতিবন্ধী শিশু হওয়ার কারণে তারা পরিবারে ও সমাজে হয়রানির শিকার হয়ে থাকে। এর মধ্যে ছেলে শিশু ৭৮.৬ শতাংশ এবং মেয়েশিশু ৫৫.২ শতাংশ।

জরিপে আরও দেখা হয়েছে যে পর্ণগ্রাফিতে শিশুর প্রবেশাধিকার কেমন বা কতোটা? শতকরা ৩৪ জন শিশু বলেছে যে তারা পর্নোগ্রাফি দেখে। এর চাইতেও ভয়াবহ ব্যাপার হচ্ছে শতকরা ৭৫.১ জন শিশু, যাদের মোবাইলে ইন্টারনেট কানেকশন আছে, তারাও পর্নোগ্রাফি দেখছে। শতকরা ২৬ জন মেয়েশিশু বলেছে যে তারা আত্মীয়দের সঙ্গে পর্নোগ্রাফি দেখছে। শতকরা ১৪.৪ জন মেয়েশিশু দেখেছে অনাত্মীয়দের সঙ্গে। শিশুদের এইভাবে পর্নোগ্রাফি দেখার মাধ্যমে তাদের যৌন হয়রানির আশঙ্কা অনেক বেড়ে যায়।

জরিপে থেকে যে সুপারিশমালা উঠে এসেছে এর মধ্যে আছে নীরবতার সংস্কৃতি ভাঙতে হবে। শিশুর প্রতি যেকোনো ধরনের নির্যাতনের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে হবে। শিশুর মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য তার জন্য কাউন্সিলিং এর ব্যবস্থা করতে হবে। বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে অনিরাপদ পারিবারিক অভিবাসন থামাতে হবে। শিশুর প্রতি যে অপরাধ করবে, শিশুকে নির্যাতন করবে তাকে ভালোভাবে বোঝাতে হবে এবং প্রয়োজনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। কমিউনিটি ভিত্তিক শিশু সুরক্ষা পলিসি গ্রহণ করতে হবে। 

সভায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের সিনিয়র ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য স্থানীয় সরকার পর্যায়ে শিশু বাজেটে ১০ শতাংশ বরাদ্দের দাবি জানান। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে শিশুর ব্যবহার বন্ধের ওপর জোর দেন তিনি। 

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেন, ‘প্রত্যেক শিশুর সুন্দর নিরাপদ ভবিষ্যৎ আমরা দেখতে চাই। কোনো শিশু যেন তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত না হয় এটা প্রত্যাশা।’





Source link