পর্তুগালকে ঢাকায় দূতাবাস খোলার আহ্বান বাংলাদেশের

44


পর্তুগালকে ঢাকায় আবাসিক দূতাবাস খোলার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ। লিসবনে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের দ্বিতীয় সমুদ্র বিষয়ক সম্মেলনের সাইডলাইনে বাংলাদেশ ও পর্তুগালের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকে এ আহ্বান জানানো হয়। আজ শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

এতে জানানো হয়, গত ১ জুলাই লিসবনে পর্তুগালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোয়াও গোমেস ক্রাভিনহোর সঙ্গে প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে এগিয়ে নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করেন দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

বৈঠকে এ কে আবদুল মোমেন বলেন, গত ১০ বছর ধরে পর্তুগালে আবাসিক দূতাবাস রয়েছে বাংলাদেশের। এ ছাড়া স্থায়ী মিশনের জন্য জায়গাও কেনা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশেও পর্তুগালের একটি আবাসিক দূতাবাস খোলার বিষয়টি বিবেচনায় আনতে পর্তুগাল সরকারের কাছে আহ্বান জানান তিনি। 

যদি তা সম্ভব নাও হয়, তবে ভিসা আবেদন কেন্দ্র এবং পর্যায়ক্রমে কনস্যুলার সেবা নিশ্চিত করা যায় এমন ব্যবস্থা করার জন্য আহ্বান জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ জন্য বাংলাদেশ সরকার সব সহযোগিতা করবে বলেও পর্তুগালের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আশ্বাস দেন তিনি। 

এ সেবাগুলো পর্তুগালের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী, বাংলাদেশি অধিবাসীদের পারিবারিক পুনর্মিলনের জন্য প্রয়োজন বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

বৈঠকে দুই মন্ত্রী আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেওয়া বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখার জন্য পর্তুগালের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন এ কে আবদুল মোমেন। 

বৈঠকে বাণিজ্য, বিনিয়োগ, মানবসম্পদ, সুনীল অর্থনীতি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং মানুষে মানুষে যোগাযোগে সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

বৈঠকে পর্তুগালের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান এ কে আবদুল মোমেন। জোয়াও গোমেস ক্রাভিনহো আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন।





Source link