নারী উন্নয়নে বরাদ্দ বাড়ছে প্রায় ৩১ হাজার কোটি টাকা

33


নারী উন্নয়নে ২০২২–২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে প্রায় ৩১ হাজার কোটি টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরে নারী উন্নয়নে বরাদ্দ ছিল ১ লাখ ৯৮ হাজার ৫৮৭ কোটি টাকা। ২০২২-২৩ অর্থ বছরে তা বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ২ লাখ ২৯ হাজার ৪৮৪ কোটি টাকায়।

এর আগে, ২০২১-২২ অর্থবছরের নারী উন্নয়ন খাতে পরিচালন বাজেটে জেন্ডার সম্পৃক্ততার পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৬ হাজার ৮৭৪ কোটি টাকা। যা ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাড়িয়ে ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭৩৭ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। অনুরূপভাবে, ২০২১-২২ অর্থবছরে উন্নয়ন বাজেটে জেন্ডার সম্পৃক্ততার পরিমাণ ছিল ৯১ হাজার ৭১৩ কোটি টাকা। যা এ বছর ৯৫ হাজার ৭৪৭ কোটি টাকায় উন্নীত করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

২০২২-২৩ অর্থবছরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের নারী উন্নয়নে মোট বরাদ্দ জাতীয় বাজেটের ৩৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ এবং জিডিপির ৫ দশমিক ১৬ শতাংশ। অর্থ মন্ত্রণালয়ের জেন্ডার বাজেট প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানানো হয়। নারী উন্নয়ন কার্যক্রম এবং রয়েছে এমন ৪৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে আওতাভুক্ত করে এই জেন্ডার বাজেট প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। 

নারী উন্নয়নে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হলেও নারী অধিকারকর্মীরা বলছেন, বরাদ্দ বৃদ্ধির চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো—বরাদ্দকৃত অর্থটা যথাযথভাবে ব্যয় করা হলো কিনা তা মনিটর করা। এ বিষয়ে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি ফওজিয়া মোসলেম বলেন, ‘৪৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে আওতাভুক্ত করে নারী উন্নয়নে বাজেট বরাদ্দে বৃদ্ধির তথ্য দেওয়া হচ্ছে। দেখা গেল, একটা সেতু বানিয়ে বলা হলো, নারীরাও এখান থেকে চলাচল করবে। প্রকৃতপক্ষে এটা তো আসলে নারী উন্নয়নে ব্যয় হলো না। নারীদের নিরাপত্তা, করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত নারীদের পুনর্বাসনে কতটা বরাদ্দ হবে এবং ব্যয় হবে সেটা মনিটর করাই হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। অন্যথায় বরাদ্দ বৃদ্ধি শব্দটা শুধু কাগজে কলমেই থেকে যাবে। 





Source link