দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কাল দেশব্যাপী আধাবেলা হরতাল 

23


জ্বালানি তেল, ইউরিয়া সার, নিত্যপণ্যের দাম ও পরিবহন ভাড়া কমানো এবং বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া বন্ধের দাবিতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার দেশব্যাপী আধাবেলা হরতাল পালনের আহ্বান জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট।

নয়টি বাম সংগঠনের আরেক জোট ‘৯ সংগঠন’ যুগপৎভাবে হরতাল পালন করবে বলে জানিয়েছে। এই হরতাল জনগণের বেঁচে থাকার হরতাল উল্লেখ করে আগামীকালের অর্ধদিবস হরতাল সফল করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন উভয় জোটের নেতৃবৃন্দ। 

আজ বুধবার বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কার্যালয়ের মৈত্রী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানান বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ও সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স। 

রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, ‘সারা দেশে হরতালের আহ্বান দেশবাসীর কাছে পৌঁছে দিতে প্রতিদিন প্রচার-প্রচারণা, সভা-সমাবেশ করছে নেতা–কর্মীরা। হরতালে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সমর্থন জানাচ্ছে। সাধারণ মানুষের অনেকেই আমাদের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে প্রচার কাজে অংশ নিয়েছেন। প্রচারের সময় সাধারণ মানুষ তাঁদের দুঃসহ জীবনের কথাও তুলে ধরছেন। অন্যদিকে সরকারি দলের লোকজন ও পুলিশ অনেক জায়গায় প্রচারে বাধা দেওয়া, ভয়ভীতি প্রদর্শন, মাইক ভাঙচুর, ব্যানার-লিফলেট ছিনিয়ে নেওয়ার মতো ঘটনা ঘটিয়েছে। এসব বাধা উপেক্ষা করে আমরা আমাদের প্রচার কাজ অব্যাহত রেখেছি।’ 

রুহিন হোসেন প্রিন্স আরও বলেন, ‘গত ২০ আগস্ট সকালে ঢাকার তেজগাঁও এলাকায় আমাদের প্রচারণা ও সমাবেশে সরকারি দলের পরিচয় দিয়ে সন্ত্রাসীরা বাধা দেয়। একইদিনে গাজীপুরের কালিয়াকৈর এলাকায় আমাদের মিছিলে হামলা চালায় সরকারি দলের সন্ত্রাসীরা। ২২ আগস্ট বিকেলে নাটোর জেলার হরিশপুর বাইপাসে পথসভা চলাকালীন ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে নেতা-কর্মীদের মারধর করে ব্যানার-লিফলেট ছিনিয়ে নিয়ে পুড়িয়ে ফেলে। মাইক-ব্যাটারি ভাঙচুর করে এবং সমাবেশ পণ্ড করে দেয়। সিলেটে সমাবেশ ও মিছিলে পুলিশ বাধা দেয়, হামলা চালায়। ২৩ আগস্ট কেরানীগঞ্জে লিফলেট বিতরণের সময় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা লিফলেট ছিনিয়ে নেয় ও ছিঁড়ে ফেলে।’ 

সরকার বর্তমান সংকটে মানুষ বাঁচাতে দায়িত্বশীল আচরণ না করে নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়েই চলেছে উল্লেখ করে প্রিন্স বলেন, ‘সম্প্রতি মোটা চালসহ চালের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। জ্বালানি তেল ও সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাবে সর্বত্র মূল্যবৃদ্ধি মানুষের জীবনকে একেবারেই অতিষ্ঠ করে তুলছে। এই মূল্যবৃদ্ধি মানুষ কোনোভাবেই সহ্য করতে পারছে না। এর মধ্যে পানির দাম সেপ্টেম্বর থেকে আবারও বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে রেখেছে। বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়ানোরও পাঁয়তারা চলছে। এই হরতাল শুধু বামপন্থীদের হরতাল নয়, এ হরতাল দেশের সাধারণ মানুষের বেঁচে থাকার দাবির হরতাল।’ 

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির মূল্যবৃদ্ধির জাঁতাকলে সারা দেশে শ্রমজীবী মানুষই সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘এই সংকটকালে দেশের লাখ লাখ চা শ্রমিক মজুরি বৃদ্ধির জন্য দু’সপ্তাহ ধরে আন্দোলন করলেও মালিক-সরকার সময়ক্ষেপণ করে দাবি অগ্রাহ্য করে চলছে। সরকারের এসব গণবিরোধী সিদ্ধান্ত এখনই রুখে না দাঁড়ালে মানুষের পকেট কাটার এই উৎসব চলতে থাকবে। মানুষ নিষ্পেষিত হতে থাকবে। আমরা দেশবাসীকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত রাজপথে থেকে অর্ধদিবস হরতাল সফল করার আহ্বান জানাচ্ছি। এরপরও সরকার দাম কমানোর পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে ভবিষ্যতে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’ 

রুহিন হোসেন প্রিন্স জানান, জরুরি সেবাদানকারী যানবাহন যেমন-অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, লাশ বহনকারী গাড়ি, গণমাধ্যমের গাড়ি, ওষুধের দোকান, খাবার হোটেল হরতালের আওতার বাইরে থাকবে।





Source link