তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির সম্ভাবনা দেখছেন না কাজী খলীকুজ্জমান

21


তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি হওয়ার আর কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। আজ শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি আয়োজিত ‘গঙ্গা, তিস্তা, মেঘনা নদীর ব্যবস্থাপনা ও পানির ওপর কৃষক ও আদিবাসীর অধিকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাজী খলীকুজ্জমান বলেন, ‘বহুল আলোচিত তিস্তা নদীর পানি বণ্টন চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা দেখছি না। তিস্তার কথা আমরা সবাই জানি। সব ঠিক হয়ে গেল। চুক্তিপত্র লেখা হলো। এরপর মমতা ব্যানার্জি বললেন তিনি মানেন না। চুক্তি আর হলো না। মমতা একবার হ্যাঁ বললেই তিস্তা চুক্তি হয়ে যেত। তিস্তা চুক্তি হয়নি। হওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে আমার মনে হয় না।’ 

ভারতের কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া, পরে রাজ্য সরকার তা নাকচ করে দেওয়া হয়—এমন ঘটনাকে নাটক অভিহিত করে কাজী খলীকুজ্জমান বলেন, ‘২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফরের আগে দুই দেশের পানি সম্পদ মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তির বিষয়ে উভয় পক্ষ একমত হয়েছিল। মনমোহন সিংয়ের সফরেই চুক্তি হওয়ার কথা থাকলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতায় তা আটকে যায়। আমার তো মনে হয়, আগে থেকেই এটি ঠিক করা ছিল। অঙ্গরাজ্য করবে না, কেন্দ্রীয় রাজ্য করতে চায়, চুক্তি খসড়া করে নিয়ে এসেছে। এটি হওয়ার কথা বলে আমার মনে হয় না। আগে ঠিক করে আসা উচিত ছিল বলে আমার মনে হয়। এ ধরনের ড্রামা আগেও হয়েছে।’ 

বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর তিস্তা চুক্তি নিয়ে আশার কথা শোনা গেলেও মমতার অবস্থান বদলায়নি। এ কারণে সে আশা ছেড়ে দিয়ে বরং নদীগুলোকে নিয়ে পরিকল্পনা করে কাজ করার আহ্বান জানান খলীকুজ্জমান। তিনি বলেন, ‘দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা চেয়ে আমার মনে হয়, বর্তমানের সমস্যাকে প্রাধান্য দিতে হবে। পাঁচ বছরের পরিকল্পনা আমরা করি। কিন্তু কাজ করি বার্ষিক পরিকল্পনা করে। এ জন্য বর্তমানের সমস্যাকে গুরুত্ব দিতে হবে।’ 

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য মাহমূদুল হাসান মানিক বলেন, ‘স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরেও আন্তর্জাতিক নদীগুলোর ওপর আমাদের অধিকার, ন্যায়সংগত পানির হিস্যা, আন্তর্জাতিক নদীসহ নদী ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে একমাত্র গঙ্গার পানির চুক্তি ছাড়া ৫৪টি আন্তর্জাতিক নদী ব্যবস্থাপনায় কোনো অগ্রগতি সাধন করতে পারিনি। বরং এই পঞ্চাশ বছরে উজানে পানি প্রত্যাহার করে নেওয়ায়, উজানে বহু বাঁধ নির্মাণ, জলবিদ্যুৎ স্থাপনার কারণে এসব নদীর পানির অধিকার থেকে আমরা বঞ্চিত হচ্ছি না কেবল, খরা মৌসুমে পানি না পাওয়া, আর বর্ষা মৌসুমে উপর্যুপরি বন্যার দ্বারা দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।’ 

গঙ্গার পানিচুক্তির জন্য আমাদের স্বাধীনতার পর পঁচিশ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে জানিয়ে মানিক বলেন, ‘তত দিনে উজানে পানি প্রত্যাহার করায় ফারাক্কায় গঙ্গার পানি প্রবাহ নিদারুণভাবে কমে গেছে। চুক্তিতে পাঁচ বছর পরপর পর্যালোচনার কথা বলা হয়েছিল, হয়নি। এখন শুকনো মৌসুমে এত পানি প্রবাহ কম যে পদ্মার তলদেশ ভরাট হয়ে উঁচু হয়ে গেছে। ২০২৬ সনে ৩০ বছর মেয়াদি এই চুক্তি শেষ হবে। বলা আছে চুক্তি নবায়ন না হলেও বাংলাদেশ তাদের প্রাপ্যের ৯০ শতাংশ পানি পেতে থাকবে। তবে গঙ্গার পানি প্রবাহ যদি না থাকে তখন নব্বই কেন এক শ ভাগ হিস্যা দিয়েও লাভ হবে না।’ 

মেঘনা অববাহিকার ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছে জানিয়ে ওয়ার্কার্স পার্টির এ নেতা বলেন, ‘এবারের বর্ষার আগেই নদীর তলদেশ উঁচু হওয়ায় সুরমার বন্যায় সিলেট ডুবেছে। মেঘনা নদীর পরিণতি কী হবে জানা নেই। ভারতের পর এবার চীন ব্রহ্মপুত্র নদীতে উজানে বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এগিয়ে যাচ্ছে। ব্রহ্মপুত্রের উজানে জলবিদ্যুৎ স্থাপনাও তৈরি হচ্ছে। এর ফলে বাংলাদেশের ব্রহ্মপুত্র-যমুনার কী হবে সেটাও উদ্বেগের বিষয়।’





Source link