ডেঙ্গুতে একের পর এক রেকর্ড 

28


দেশে ডেঙ্গু রোগীর শনাক্তের রেকর্ড প্রতিদিনই ভাঙছে। ডেঙ্গু বিষয়ে দেশের বিশেষজ্ঞদের অভিমতই শেষ পর্যন্ত বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। গত কয়েক দিন ধরে একের পর এক রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। চলতি মাসের ২৫ দিনে জুলাইয়ের চেয়ে ৬৪ শতাংশ রোগী বেশি শনাক্ত হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের প্রতিবেদন বিশ্লেষণে এই চিত্র পাওয়া গেছে। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত বুধবার সকাল আটটা থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল আটটা পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ১৮০ জন রোগী। এদের মধ্যে ঢাকায় ১৩৪ জন এবং বাইরে ৪৬ জন। আগেরদিন ১৬৫ জন। এদের মধ্যে ঢাকায় ১২৫ জন এবং বাইরে ছিল ৪০ জন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫৭২ জন রোগী। আগেরদিন ভর্তি ছিল ৫২১ জন। এদের মধ্যে রাজধানীর ৪৭টি সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৪৬৭ জন এবং বাইরে ১০৫ জন। আগেরদিন ঢাকায় ছিল ৪৩৭ জন এবং বাইরে ৮৪ জন। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, চলতি মাসের ২৫ দিনে ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে দুই হাজার ৪৫৭ জন। আর জুলাই মাসের ৩১ দিনে মোট রোগী শনাক্ত হয়েছিল এক হাজার ৫৭১ জন। গত মে মাসের ৩১ দিনে মোট রোগী শনাক্ত ও ভর্তি হয়েছিলেন ১৬৩ জন। জুনের ৩০ দিনে ছিল ৭৩৭ জন। আর এ বছর ডেঙ্গুতে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। এদের মধ্যে জুনে একজন, জুলাইতে ৯ জন ও আগস্টের ২৩ দিনে ৯ জন। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল ২৫ আগস্ট পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে পাঁচ হাজার ১১৭। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়েছেন চার হাজার ৫২৬ জন। ঢাকায় ভর্তি হয়েছেন চার হাজার ২২৩ জন এবং ছাড়পত্র নিয়েছেন তিন হাজার ৭৪৭ জন। ঢাকার বাইরে মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে ৮৯৪ জন। এদের মধ্যে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৭৭৯ জন। এ সময় মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। 

কীটতত্ত্ববিদেরা জানান, তাদের আগেই ধারণা ছিল আগস্ট সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু সর্বোচ্চ চূড়ায় উঠবে। দেশে চলতি মাসে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৯৫ জনের মতো রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এ জন্য দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে সরকারকে। যেসব এলাকায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেশি সেখানে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে দ্রুত মশা মারতে হবে।





Source link