কঠিন সময়ের মধ্যে ভোক্তা ও সরকার

32


কঠিন সময়ে ভোক্তা আর সরকার– উভয়েরই চাপের বাজেট আসছে আগামীকাল বৃহস্পতিবার। এক দিকে নিত্যপণ্যের লাগামহীন দামের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সাধারণ মানুষের টিকে থাকার সংগ্রাম, অপর দিকে আয়ের চেয়ে বেশি খরচের ফর্দ নিয়ে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেল আর নিত্যপণ্যের পেছনে বাড়তি ভর্তুকির দুশ্চিন্তা সরকারের। ডলারের মজুত ধরে রাখা, ঋণ ব্যবস্থাপনা, সরকারি খরচের লাগাম টানা, বিনিয়োগ, কর্মসংস্থানসহ নানা বিষয়ে একূল সামলাতে গিয়ে ওকূলে টান পড়ছে।

এমন এক পরিস্থিতিতে সবার চোখ এখন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কালো ব্রিফকেসের দিকে। তাঁর ব্রিফকেসের মলাটবন্দী বাজেট বক্তৃতায় তিনি কী বার্তা লিখে রেখেছেন, যা শুনে সাধারণ মধ্যবিত্তের মধ্যে স্বস্তি এনে দেবে–এই প্রশ্ন সব মহলে। নাকি তিনি বড় খরচের হিসাব মেলাতে রাজস্ব আয়ের আড়ালে নিত্যপণ্যের সঙ্গে শুল্ক-কর-ভ্যাটের বোঝা চাপিয়ে মানুষের দিনযাপনকে আরও কঠিন করে তুলবেন? তবে প্রশ্ন যা-ই হোক, বৈশ্বিক সংকটের প্রভাবে আসছে বাজেটটি যে ভোক্তা কিংবা সরকার কারও জন্যই স্বস্তিকর নয়—এ ব্যাপারে অনেকটাই একমত বিশ্লেষক ও অর্থনীতিবিদেরা। তাঁরা মনে করেন, চাপে থাকা সাধারণ মানুষ নতুন অর্থবছরে আরেকটু চাপে পড়তে পারে। তাই সরকারের উচিত হবে বাজেটে সতর্কতার সঙ্গে পদক্ষেপ নেওয়া।

এ বিষয়ে ট্যারিফ কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. আজিজুর রহমান বলেন, বাজেটে কিছু করুক না করুক, বাজেট ঘোষণার পর নিত্যপণ্যের একটু দাম বাড়িয়ে দেওয়া একটা সংস্কৃতিতে পরিণত হয়েছে। তবে এবারের পরিস্থিতিটা ভিন্ন। এর বাইরেও এবার জনগণের ওপর কিছুটা বাড়তি চাপ পড়তে পারে। কারণ এবার চারদিকে সমস্যা। তিনি বলেন, সরকার একটা শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থার মধ্যে রয়েছে। এ অবস্থার মধ্যে সরকারকে যদি কিছু পদক্ষেপ নিতে হয়, তাহলে এমনিতেই চাপে থাকা জনগণ আরেকটু চাপে পড়বে। এ ছাড়া তেমন গতি নেই। তবে সরকার সতর্ক আছে বলে মনে হয়। সামনে নির্বাচন আছে। যতটা পারা যায় জনগণকে ভালো রাখার চেষ্টা করবে।

গবেষণা সংস্থা বিআইডিএসের গবেষণা পরিচালক ড. মনজুর হোসেন বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা হ্রাস ও সরকারের রাজস্ব আদায়ের চ্যালেঞ্জের মধ্যে ঋণ করে বড় আকারে একটা বাজেট দেওয়া সরকারের উচিত হবে না। বরং দরিদ্র মানুষকে একটু সহায়তা দেওয়ার জন্য আগামী বাজেটে সরকারের উচিত সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আকার ও প্রদত্ত টাকার পরিমাণ বাড়ানো। নিম্ন মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে টিআর, কাবিখার মতো কিছু প্রকল্প নেওয়া এবং একই সঙ্গে খোলাবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বিক্রি আরও সম্প্রসারিত করতে হবে।

বাজেট তৈরির সঙ্গে জড়িত অর্থ মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের কর্মকর্তারা বলছেন, এভাবে মানুষ নতুন অর্থবছরে খরচের চাপে পিষ্ট হওয়ার ঝুঁকিতে থাকলেও সরকার যে খুব নির্ভার থাকবে, এমন নয়। কারণ নতুন অর্থবছরে অর্থমন্ত্রী বড় বাজেট দিলেও রাজস্ব আয়ে রাতারাতি কোনো সাফল্য আসবে না। তাই ধার করে খরচ মেটানোর লক্ষ্য। এর সঙ্গে অর্থমন্ত্রীকে বিশ্ববাজার থেকে অনেক বেশি দাম দিয়ে জ্বালানি তেল কিনতে হবে। এ ছাড়া প্রায় সব ধরনের পণ্যের দাম বেশি হওয়ায় আমদানির পেছনে দেশের বিপুল অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা খরচ হচ্ছে। সহসাই এ ধারা কমে আসবে এমনটি আশা করা যায় না। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে চাপ পড়ছে। যেহেতু রাজস্ব আয় কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় হবে না, ধারের পরিমাণ বাড়ছে। এ জন্য ধারের বিপরীতে সুদ বাবদ টাকা গুনতে হবে। সামাজিক সুরক্ষায় বরাদ্দ বাড়িয়ে দরিদ্র মানুষের খাওয়ানোর পেছনে খরচ বাড়বে। চারদিকের এসব চাপ সামলানো অর্থমন্ত্রীর জন্য অনেকটাই কঠিন হয়ে যাবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।





Source link