ইউনূস-হিলারির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে

30


পদ্মাসেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থ বরাদ্দ বন্ধ করার ষড়যন্ত্রে ড. ইউনূস, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন ও যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের স্ত্রী চেরি ব্লেয়ারকে অভিযুক্ত করে তাঁদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন। 

মঙ্গলবার ২০২২-২৩ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এ দাবি জানান স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নিক্সন। 

পদ্মাসেতু উদ্বোধন করায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নিক্সন বলেন, ‘কোনো অপরাধ ছাড়া কেন আমাদের এই ষড়যন্ত্রের স্বীকার হতে হয়েছে? এরই মধ্যে কানাডার আদালতে প্রমাণ হয়েছে এই প্রকল্পে কোনো দুর্নীতি হয়নি।’ 

পদ্মাসেতু বাস্তবায়ন যাতে না হয় সে জন্য দেশে-বিদেশে যারা ষড়যন্ত্র করেছে, তাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘ড. ইউনূস, হিলারি ক্লিনটন ও টনি ব্লেয়ারের স্ত্রীর ওপর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হোক। যাতে ভবিষ্যতে বাংলাদেশে এসে কোনো নতুন করে কোনো ষড়যন্ত্র না করতে পারে।’ এ ছাড়া দেশের বিরোধিতাকারীদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলার দাবি করেন স্বতন্ত্র এ সংসদ সদস্য। তিনি বলেন, ‘তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন ড. ইউনূস, এমিতের টাকা আত্মসাৎকারী খালেদা জিয়া ও তার বড় ছেলে চোরা তারেক জিয়া।’

নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করে এরই মধ্যে প্রমাণ করেছেন তাঁর সরকারের আমলে কেউ অপরাধ করে রেহাই পাবে না। আমি বিশ্বাস করি, যারা গরিবের হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি করে যারা বিদেশের ব্যাংকে টাকা রেখেছেন, যাদের নাম পানামা পেপারস এবং প্যারাডাইস পেপারসে এসেছে, শিগগিরই দুদকের মাধ্যমে তদন্ত করে তাদের বিচারের আওতায় আনা হোক।’ 

নিক্সন বলেন, ‘আমাদের দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসী ভাইয়েরা বড় ভূমিকা পালন করেন। তাঁদের পাঠানো রেমিট্যান্সের মাধ্যমে অর্থনীতির চাকা সচল থাকে। প্রবাসী ভাইয়েরা বিমানবন্দরে বিভিন্নভাবে হয়রানির শিকার হন। বিমানবন্দরে নেমে এই রেমিট্যান্স যোদ্ধারা যেন হয়রানির শিকার না হন তাই থার্ড টার্মিনালে ট্যাক্স, কাস্টমস সেল স্থাপনের জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’ 





Source link