সীতাকুণ্ডের জন্য কাঁদলেন সাকিবরাও

17


ভয়ানক কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রামের মানুষ! সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের বিএম কনটেইনার ডিপোতে গতকাল রাতে আগুন থেকে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণে নিহত তো হয়েছেনই, আহত হয়েছেন অনেক মানুষ।

সীতাকুণ্ডের ভয়াবহ এই বিস্ফোরণে মানুষের আর্তনাদ ছুঁয়ে গেছে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের। কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউবা সংবাদমাধ্যমের সামনে নিজেদের খারাপ লাগার অনুভূতি প্রকাশ করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক শোকবার্তায় সাকিব আল হাসান লেখেন, ‘চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ভয়াবহ এক বিস্ফোরণে নেমে এসেছে মানবিক বিপর্যয়। এই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো সকলের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং তাদের পরিবারের প্রতি থাকল আমার সমবেদনা। ভয়ংকর এই অগ্নিকাণ্ডে আহত সবার দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি। প্রতিকূল এই সময়ে চট্টগ্রামের পাশেই আছে পুরো বাংলাদেশ। সবাইকে রক্তদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি। যে সকল সাহসী অগ্নিনির্বাপক কর্মী, পুলিশ এবং জরুরি কর্মীরা জীবন দিয়ে লড়ে যাচ্ছেন পরিবেশ অনুকূলে আনার জন্য তাদের সবার প্রতি থাকল আমার শ্রদ্ধা।’

একটি মোবাইল সেবা প্রতিষ্ঠানের পণ্যদূত হিসেবে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তামিম বলেন, ‘যা হয়েছে এটা খুবই দুঃখজনক। আমাদের সবার দোয়া যারা আক্রান্ত হয়েছে তাদের সঙ্গে, তাদের পরিবারের সঙ্গে। আমার কাছে মনে হয়, এ রকম দুর্ঘটনা আগেও হয়েছে। এটা চট্টগ্রামে হয়েছে। কিন্তু আমরা যখনই এ রকম কোনো কিছু হয় দেশ হিসেবে একসঙ্গে এগিয়ে আসি। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যে জায়গায় আছি না কেন ঢাকা, খুলনা…আমাদের সবাইকে নিজ জায়গা থেযতটুকুটুক পারি ছোট বড় যা সহযোগিতা করতে পারি, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি, তারা সেরা চিকিৎসা সেবা পাবে, সহযোগিতা পাবে। তারা সুস্থ হয়ে উঠবে। আমাদের সকলের দোয়া তাদের সঙ্গে আছে।’

সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লেখেন, ‘চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনারের ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং যারা আহত হয়েছে তাদের প্রতি রইল সমমর্মিতা। আমি চট্টগ্রামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও সাধারণ মানুষকে অনুরোধ করি যেন হতাহতদের সাহায্যে এগিয়ে আসে। শুনেছি প্রচুর রক্তের প্রয়োজন। সবাই এগিয়ে আসুন। আপনার একটু সহযোগিতা, এক ব্যাগ রক্ত হয়তো বাঁচিয়ে দিতে পারে একটি প্রাণ, হাসি ফোটাতে পারে একটি পরিবারে। সকলে প্রার্থনা করি।’

সাবেক অধিনায়ক ও অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের লেখেন, ‘চট্টগ্রাম থেকে আসা খবরটা শুনে খুব খারাপ লাগছে। আহত-নিহতদের পরিবারের জন্য প্রার্থনা করি। শক্ত থাকো, সীতাকুণ্ড। আল্লাহ আমাদের সবাইকে নিরাপদ রাখুন।’





Source link