সাজগোজ করা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়

14


ফ্রেঞ্চ ওপেন শেষ হলেও এ নিয়ে চর্চা এখনো চলছে। এবার নারী এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ইগা সিয়াতেক। ২০২০ সালেও শিরোপাটা উঠেছিল পোলিশ তারকার হাতে।

দুই বছর পর রোলাঁ গারোর রানির মুকুট ফিরে পাওয়ায় স্বাভাবিকভাবে উচ্ছ্বসিত সিয়াতেক। ট্রফি নিয়ে তিনি এখন প্যারিস শহর ঘুরে দেখছেন, নানা ভঙ্গিতে ছবিও তুলছেন। সময়টা এখন তাঁর। ডানা মেলে উড়ে বেড়াবার। 

নারী টেনিসের গ্ল্যামার সর্বজনবিদিত ব্যাপার। এখানে খেলার সঙ্গে সৌন্দর্যেরও যোগসূত্র আছে। আনা কুর্নিকোভা-মারিয়া শারাপোভারা তো নিজেদের রূপ দিয়েই নারী টেনিসকে আরেক ধাপ ওপরে নিয়ে গেছেন। তবে সেই গ্ল্যামারে গা ভাসাতে চান না সিয়াতেক। সংবাদ সম্মেলনে ব্রিটিশ সাংবাদিকদের প্রশ্নে তাই একটু বিব্রতই হয়েছেন নারী টেনিসের শীর্ষ তারকা। 

সাংবাদিক ক্যাথরিন হুইটেকার সিয়াতেককে প্রশ্ন করেন, ‘যখন আপনি পার্টিতে যান, তখন কি আপনি সাজগোজ (মেকআপ) করেন নাকি টেনিস কোর্টের মতোই সাদামাটা থাকেন? আসলে অতীতে অনেককেই দেখেছি কোর্টে নামার আগে আয়নার সামনে অনেক সময় ব্যয় করেন।’ 

ফ্রেঞ্চ ওপেনের শিরোপা হাতে হাস্যোজ্জ্বল সিয়াতেক। ছবি: সংগৃহীত

জবাবে ২১ বছর বয়সী সিয়াতেক বলেছেন, ‘আপনাকে ধন্যবাদ। কোর্টে আমি একটি ক্যাপ পরে থাকি। তাই আমাকে চুল নিয়ে ভাবতে হয় না। এটি সবচেয়ে ইতিবাচক বিষয়। আমার কাছে সাজগোজ করা গুরুত্বপূর্ণ নয়। মেকআপ খুব বেশি পরিবর্তন আনে বলে মনে হয় না। যদি মেকআপ নিয়ে কোর্টে যাই, তাহলে বারবার তোয়ালে ব্যবহার করলে এটি উঠে যাবে।’ 

ফ্রেঞ্চ ওপেনের শিরোপা জয়ের পথে একটি জায়গায় ভেনাস উইলিয়ামসকে ছুঁয়ে ফেলেছেন সিয়াতেক। একুশ শতকে নারী এককে সবচেয়ে বেশি টানা ৩৫ ম্যাচ জয়ের রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন তিনি। উইম্বলডনে ভেনাসের রেকর্ড ভেঙে দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন তিনি। তবে সিয়াতেকের লক্ষ্য শুধু একটি ম্যাচ জয় নয়; সবুজ গালিচাতেও শিরোপা উৎসব করা, ‘আমার কোচ মনে করেন, আমি ঘাসের কোর্টেও শিরোপা জিততে পারি। সেই যোগ্যতা আমার আছে।’





Source link