শরীফুল-ইবাদতের চেষ্টায় বাংলাদেশের ২৩৪

16


ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৩৪ রানে থেমেছে বাংলাদেশ। দারুণ শুরুর পর মাঝে ব্যাটিং ব্যর্থতা আর শেষে চমক মিলিয়ে মোটামুটি একটা স্কোর পেল সাকিব আল হাসানরা।

আজ সেন্ট লুসিয়া টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৩৪ রানে থেমেছে বাংলাদেশ। শেষের দিকে বাংলাদেশকে ২০০ পেরোনো দারুণ এক ইনিংস এনে দেন শরীফুল ইসলাম ও ইবাদত হোসেন। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৩ রান আসে লিটনের ব্যাটে।

দিনের প্রথম ঘণ্টা কোনোমতে কাটিয়েই দিয়েছিল বাংলাদেশের ওপেনাররা। বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার আভাস মিলছিল কিছুটা। কিন্তু এরপরই ভুল করে বসেন মাহমুদুল হাসান জয়। অভিষিক্ত অ্যান্ডারসন ফিলিপের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি।

লাঞ্চের আগে আরেক ওপেনার তামিমকে (৪৬) হারায় বাংলাদেশ। তৃতীয় উইকেটের জুটিতে এনামুল হক বিজয়কে নিয়ে ভালো কিছুর আভাস দিয়েছিলেন শান্ত। কিন্তু পরপর দুই ওভারেই দু’জনে ফিরেন এলবিডব্লুতে।

ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের সঙ্গে লিটনের জুটির দিকে হয়তো মুখিয়ে ছিলেন বাংলাদেশি সমর্থেকরা। কিন্তু হতাশ করলেন সাকিবও। জেইডেন সিলসের বলে ড্রাগস অন হয়ে ফেরেন সাকিব (৮)। কিপার ব্যাটার নুরুল হাসান সোহানও থিতু হওয়ার আগেই ফেরেন কট বিহাইন্ডে।

দিনের শেষ সেশনের শুরুতে মেহেদী হাসান মিরাজকে হারান লিটন। নতুন ব্যাটার ইবাদত হোসেন দারুণ সঙ্গ দেন তাকে। বাংলাদেশের একমাত্র ব্যাটার হিসেবে ফিফটি করে ফেরেন লিটনও (৫৩)।

১৯১ রানে লিটনের বিদায়ের পর শরীফুলের ঝড়ো ব্যাটিং। কিমার রোচকে দুই ওভারে চারটি বাউন্ডারি হাঁকান তিনি। ইবাদতের সঙ্গে শরীফুলের ৩৮ রানের জুটি ভাঙেন সিলস। ক্যারিয়ার সেরা ২৬ রানের দারুণ ইনিংসে বাংলাদেশকে লড়াইয়ের স্কোর এনে দেন তিনি। ২১ রানে অপরাজিত ছিলেন ইবাদত।





Source link