ম্যারাডোনা-প্লাতিনি হতে পারবেন তো মেসি

16


আগের বছর কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতে লিওনেল মেসির আন্তর্জাতিক শিরোপার আক্ষেপ ঘুচেছিল। ২৮ বছর পর আর্জেন্টিনাকে শিরোপা জেতানো মেসির সামনে এবার টানা দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের হাতছানি। একইসঙ্গে নিজের নামটা দিয়েগো ম্যারাডোনা ও মিশেল প্লাতিনির পাশে নাম লেখানোর।

রাতে মুখোমুখি হচ্ছে দুই মহাদেশীয় চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা ও ইতালি। দীর্ঘ ২৯ বছর পর আয়োজিত এই ম্যাচটি ফিফার স্বীকৃত পাওয়ায় ‘ফাইনালিসিমা’ গুরুত্ব আরও বেড়ে গেছে। প্রথমবার দুই মহাদেশের এই লড়াইয়ে শিরোপা জিতেছিল ফ্রান্স। দক্ষিণ আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়েকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল প্লাতিনির ফ্রান্স। 

পরের আর্তেমিও কাপের ম্যাচটি হবার কথা ছিল চার বছর পর ১৯৮৯তে। কিন্তু সেবারের দুই মহাদেশের চ্যাম্পিয়ন দেশ ‘১৯৮৮ ইউরো বিজয়ী’ নেদারল্যান্ড এবং ‘১৯৮৭ কোপা আমেরিকা বিজয়ী’ উরুগুয়ে নিজেদের মাঝে খেলা নিতে তারিখ নির্ধারণ করতে না পারায় সে বারের সুপার কাপ ম্যাচটি বাতিল করা হয়। 

মাঝে তাই ৮ বছর বিরতির পর ১৯৯৩ সালে দ্বিতীয়বারের মতো হয়েছিল ‘আর্মেতিও ফ্রাঞ্চি কাপ’ নামের এই দ্বৈরথ। সেবার এই শিরোপার জন্য লড়েছিল সেই সময়ের দুই মহাদেশীয় চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা ও ডেনমার্ক। ডেনমার্ককে টাইব্রেকারে ৫-৪ গোলে হারিয়েছিল ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনা। 

এবার তাঁরই উত্তরসূরি মেসির পারবেন তো আর্জেন্টিনাকে এই শিরোপা এনে দিতে! আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড অবশ্য উন্মুখ হয়ে আছেন দেশকে আরেকটি ট্রফি জেতাতে। কোপা জয়ী দলকে নেতৃত্ব দিয়ে আরেকটি শিরোপা এনে দিতে চান ৩৪ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড, ‘এটা নিছক একটা ম্যাচ নয়; ফিফা স্বীকৃত প্রতিযোগিতা। আর্জেন্টিনার মানুষ ও সমর্থকদের জন্য আরেকটি শিরোপা আনতে যাচ্ছি।’





Source link