বেনজেমাই উয়েফার বর্ষসেরা

35


সংক্ষিপ্ত তালিকায় ৩ জনকে রাখতে হয়, বলেই রাখা। পুরস্কারটা যে করিম বেনজেমার হাতেই উঠতে যাচ্ছে, সে তো আগে থেকেই জানা! 

গত মৌসুমে ঘুরে দাঁড়ানোর অবিশ্বাস্য সব গল্প লিখে রিয়াল মাদ্রিদ যে চ্যাম্পিয়ন লিগ শিরোপা ঘরে তুলেছে, সেটার মূল রচয়িতা ছিলেন বেনজেমা। ৬ বছর পর জাতীয় দলে ফিরে ফ্রান্সকে নেশন্স লিগে চ্যাম্পিয়ন করতেও বড় অবদান রেখেছেন। অর্জনের হিসেবে রিয়াল সতীর্থ থিবো কোর্তোয়া ও ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন ডি ব্রুইনার চেয়ে ঢের এগিয়ে ছিলেন তিনি। 

অনুমতিভাবেই উয়েফা বর্ষসেরার পুরস্কার জিতেছেন বেনজেমা। সেরা পুরুষ কোচ হয়েছেন রিয়ালে তাঁর গুরু কার্লো আনচেলত্তি। গতরাতে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ইউরোপীয় ফুটবলের ‘গালা’ খ্যাত অনুষ্ঠানে এসে পুরস্কার নিয়েছেন বেনজেমা। ৩৪ বয়সী স্ট্রাইকার বলেছেন, ‘প্রথমবার এই পুরস্কার জিততে পেরে সত্যিই খুব খুশি। তবে দলীয় অর্জনটাই আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমার চোখে আনচেলত্তি বিশ্বসেরা কোচ। তিনি প্রত্যেক খেলোয়াড়কে সঠিক বার্তা দিয়েছেন, আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছেন। কোন ম্যাচে কী করতে হবে, বলে দিয়েছেন।

গত মৌসুমে রিয়ালকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন বেনজেমা। করেছেন ৪৪ গোল ও ১৫ অ্যাসিস্ট। সর্বোচ্চ ১৫ গোল করে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেরা খেলোয়াড়ও হয়েছেন তিনি। 

এ বছর নারীদের সেরা কোচ হয়েছেন সারিনা ভেইগমান। এই ডাচ প্রশিক্ষকের অধীনেই প্রথমবার মেয়েদের উয়েফা ইউরো জিতেছে ইংল্যান্ড। নারীদের বর্ষসেরা খেলোয়াড় হয়েছেন বার্সেলোনার স্প্যানিশ মিডফিল্ডার আলেক্সিয়া পুতেয়াস। গত বছরও পুরস্কারটি তাঁর হাতেই উঠেছিল। 

আর ফুটবলে বিশেষ অবদান রাখায় আজীবন সম্মাননা (প্রেসিডেন্ট’স অ্যাওয়ার্ড) পেয়েছেন এসি মিলানের কিংবদন্তি ইতালিয়ান কোচ আরিগো সাচ্চি। 

উয়েফা বর্ষসেরা পুরস্কার

পুরুষ খেলোয়াড়
করিম বেনজেমা (ফ্রান্স ও রিয়াল মাদ্রিদ)

নারী খেলোয়াড়
আলেক্সিয়া পুতেয়াস (স্পেন ও বার্সেলোনা)

পুরুষ কোচ
কার্লো আনচেলত্তি (রিয়াল মাদ্রিদ)

নারী কোচ
সারিনা ভেইগমান (ইংল্যান্ড)

প্রেসিডেন্ট’স অ্যাওয়ার্ড (আজীবন সম্মাননা)
আরিগো সাচ্চি (ইতালি)





Source link