টেস্ট ক্রিকেটকে নতুন জীবন দিতে চান স্টোকস

11


‘আক্রমণাত্মক’ শব্দটার সঙ্গে ব্রেন্ডন ম্যাককালামের বেশ সখ্য। তিনি খেলোয়াড়ি জীবন থেকেই এ শব্দটাকে লালন করে এসেছেন। ইংল্যান্ডের কোচ হয়ে কৌশলটা ক্রিকেটারদের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছেন। তাঁর ভাবাদর্শে ইংলিশ ক্রিকেটাররা উজ্জীবিত হয়ে টেস্ট ক্রিকেটকে নতুন করে সংজ্ঞায়িত করতে শুরু করেছেন। 

এজবাস্টন টেস্টে রেকর্ড গড়েছে ইংল্যান্ড। নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জিতেছে তারা। ভারতের দেওয়া ৩৭৮ রানের বড় লক্ষ্য জনি বেয়ারস্টো-জো রুটরা আড়াই সেশন বাকি রেখে জিতেছেন। টেস্ট জয়ের পর অধিনায়ক বেন স্টোকস বলেছেন, ‘টেস্ট ক্রিকেট কীভাবে খেলতে হয় তা নতুন করে লিখছি। বিশেষ করে ইংল্যান্ডে। অন্য রকম পরিকল্পনাগুলোকে একসঙ্গে করে গত চার ও পাঁচ সপ্তাহ কাজে লাগাচ্ছি। এটি সত্যি অসাধারণ। আমরা অনুভব করছি সংক্ষিপ্ততম সময়ের মধ্যে খেলাটার জন্য নতুন সমর্থক এনেছি।’ 

ইংল্যান্ডের এমন আক্রমণাত্মক ক্রিকেট শুরু হয়েছে ম্যাককালাম-স্টোকসের নতুন নেতৃত্বে। তাঁদের নেতৃত্বের শুরুটা হয়েছে দুজনেরই জন্মভূমি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে। তিন টেস্টের সিরিজে নিউজিল্যান্ডকে ধবলধোলাই করেছে ইংল্যান্ড। সেটাও আবার টানা তিন ম্যাচ ২৭৫ রানের চেয়ে বেশি লক্ষ্য তাড়া করে। আর এজবাস্টন টেস্টে যা করলেন সেটা তাদের ক্রিকেট ইতিহাসকে ছাড়িয়ে গেছে।

স্টোকস তাঁদের খেলাকে বিশ্বের কাছে অনন্য করে রাখার কথাও জানিয়েছেন গণমাধ্যমের কাছে। তিনি বলেছেন, ‘পরবর্তী প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করছি আমরা কি করতে চাই। টেস্টের এই মুহূর্তটা ফলাফলের চেয়েও বড়। যাঁরা ভবিষ্যতে ইংল্যান্ড দলকে প্রতিনিধিত্ব কিংবা ড্রেসিং রুম শেয়ার করতে আসবেন। আমরা টেস্ট ক্রিকেটে ছাপ রেখে যেতে চাই।’





Source link