অপরিচিত এক নারী আমাকে চোরা পথে ব্রিটেনে এনেছিল

20


অ্যাথলেটিক্স ট্র্যাকে মো ফারাহ চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন বহুবার। পাঁচ ও দশ হাজার মিটারের ম্যারাথনে তিনি অলিম্পিকের ইতিহাসে টানা দুবার সোনা জেতা দ্বিতীয় অ্যাথলেটও। 

ঈর্ষণীয় সাফল্যের পরও নিজেকে সন্তুষ্ট রাখতে পারছিলেন না ফারাহ। জীবনের লড়াইয়ে তিনি যে এত দিন মিথ্যার সঙ্গে দৌড়াচ্ছিলেন। এবার তিনি বিবিসির প্রামাণ্যচিত্র ‘দ্য রিয়াল মো ফারাহ’ তে সত্যিকারের কাহিনী তুলে ধরেছেন। প্রামাণ্যচিত্রে ৩৯ বছর বয়সী দৌড়বিদ জানিয়েছেন, মো ফারাহ তাঁর আসল নাম নয়। প্রকৃত নাম হুসেন আবদি কাহিন। 

জীবনের সত্য ঘটনা প্রকাশ করলেন মো ফারাহ। ছবি: সংগৃহীত

এত দিন পর জীবনের প্রকৃত ঘটনা প্রকাশ করেছেন মো ফারাহ। এ বিষয়ে সাহায্য করেছেন তাঁর চার সন্তান। তিনি বলেছেন, ‘আমার কাছে পরিবারই সবকিছু। সব অভিভাবক চায় সন্তানদের সততার শিক্ষা দিতে। সন্তানদের শিক্ষা দিতে গিয়ে আমার মনে হয়েছে ব্যক্তিগত বিষয়টি গোপন রয়ে গেছে। যা আসলে বর্তমানের আমি নই। সবাইকে জানানো উচিত আমার সঙ্গে ঠিক কী ঘটেছিল। এটা বয়ে বেড়ানো খুব কঠিন মনে হচ্ছিল। সন্তানেরা আমাকে প্রায়ই প্রশ্ন করত এটা কীভাবে হয়েছে, কেন হয়েছে? তাই চেয়েছি জীবনের গল্পটা সবাইকে বলতে। আমি স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চাই। আমার মনে কোনো কিছু গুপ্ত না থাকুক।’ 

নিজের আসল পরিচয় জানাতে গিয়ে মো ফারাহ বলেছেন, ‘আমাকে যে নামে চেনেন, আসলে আমি সে নই। আমার মা-বাবা কখনো শরণার্থী হিসেবে ব্রিটেনে আসেনি। আমার জন্ম হয়েছিল সোমালিয়ার উত্তরে সোমালিল্যান্ডে। যখন বাবাকে গৃহযুদ্ধে হত্যা করা হয়, তখন আমার বয়স ছিল চার বছর। এরপর আমাদের পরিবার ভেঙে যায়। আমি ভাইসহ মায়ের কাছ থেকে আলাদা হয়ে যাই। অপরিচিত এক নারী আমাকে চোরা পথে ব্রিটেনে নিয়ে আসে। পাচারকারী নারী হুসেন আবদি কাহিন নাম বদলে মো ফারাহ দেয়। নামটি সে ব্যবহার করেছিলেন অন্য এক শিশুর পরিচয়পত্র থেকে। ব্রিটেনে নিয়ে আসার জন্য সে যাবতীয় কাগজপত্র নকল করেছিল।’ 

মায়ের সঙ্গে মো ফারাহ। ছবি : সংগৃহীত পাচারের ব্যাপারে প্রামাণ্যচিত্রে ফারাহ আরও বলেছেন, ‘আমাকে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে দেখা করানোর কথা বলে ওই নারী ব্রিটেনে নিয়ে আসে। মাঝপথে বলেছিল মো ফারাহ নামে পরিচয় দিতে। কিন্তু এখানে (ব্রিটেনে) পৌঁছানোর পর সে আমার আত্মীয়স্বজনের নাম ও ঠিকানা লেখা কাগজ ছিঁড়ে ফেলে। তখন বুঝতে পারি আমি বিপদে পড়েছি।’ 

পাচারকারী নারী ফারাহকে একটি পরিবারে কাছে বিক্রি করে দেন। ফারাহ গৃহস্থালির কাজকর্ম ও সেই পরিবারের সন্তানদের দেখাশোনা করতেন। তিনি সাত বছর পরিবারটির সঙ্গে ছিলেন। তখনকার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেছেন, ‘খাবার নিশ্চিত করতে এ কাজ করেছি। তবে বেশির ভাগ সময় আমি বাথরুমে গিয়ে কাঁদতাম।’ 

ফারাহকে ব্রিটিশ নাগরিক হতে সাহায্য করেন অ্যালান ওয়াটকিনসন। ওয়াটকিনসন তাঁর শারীরিক প্রশিক্ষক। তিনি ওয়াটকিনসনকে সব সত্যি বলে দিলে থাকার ব্যবস্থা ও নাগরিকত্বের জন্য আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর ফারাহ ২০০০ সালের ২৫ জুলাই ব্রিটেনের নাগরিকত্ব পান। 

যাঁর নাম নিজেকে পরিচিত করে তুলেছেন, ইনিই সেই সত্যিকারের মো ফারাহ। ছবি : সংগৃহীত ওয়ানকিনসনই প্রথম ফারাহর মধ্যে ভবিষ্যৎ দৌড়বিদ হওয়ার সম্ভাবনা দেখতে পান। ভালো মনের অধিকারী এ প্রশিক্ষক বিবিসির প্রামাণ্যচিত্রে বলেছেন, ‘ওকে দেখে মনে হতো সে শুধু শারীরিক শিক্ষা আর খেলাধুলাটা বোঝে।’ আর ফারাহ এ বিষয়ে বলেছেন, ‘সব কিছু থেকে দূরে থাকতে একটা জিনিসই করতে পারতাম, তা হলো বাইরে গিয়ে দৌড়ানো।’ 

 ২০১০ সালে ফারাহ তানিয়া নেলকে বিয়ে করেন। তানিয়া স্বামীর ব্যাপারে বলেছেন, ‘বিয়ের আগেই বুঝেছিলাম ওর গল্পে অনেক ফাঁকফোঁকর আছে। তাই প্রশ্ন করে করে সব স্বীকারে বাধ্য করেছিলাম।’ 

ফারাহ যাঁর নাম ব্যবহার করে বিশ্বখ্যাত অ্যাথলেট হয়েছেন, তাঁর কথা সব সময় চিন্তা করেন। তিনি বলেছেন, ‘আশা করি প্রকৃত মোহাম্মদ ফারাহ সুস্থ আছেন। ভালো আছেন। তিনি যেখানেই থাকুন না কেন, আমি তাঁর নামকে বয়ে বেড়াব। হয়তো এখন কিছুটা সমস্যা হতে পারে আমার ও আমার পরিবারের।’ 





Source link