৬ মাসের প্রয়োজন মেটাতে শ্রীলঙ্কার প্রয়োজন ৫০০ কোটি ডলার

35


চলতি বছরের বাকি ছয় মাস চলতে শ্রীলঙ্কার অন্তত ৫০০ কোটি ডলার প্রয়োজন। দেশটির প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার জানিয়েছেন, দেশটির নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের চাহিদা মেটাতেই এই ৫০০ কোটি ডলার প্রয়োজন। বুধবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাধীনতা লাভের পর বিগত ৭০ বছরের মধ্যে বর্তমানে দেশটি সবচেয়ে ভয়াবহ আর্থিক সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে দেশটিতে সরকার বিরোধী আন্দোলন তুঙ্গে উঠলে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষে পদত্যাগ করেন। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন রনিল বিক্রমাসিংহে। প্রধানমন্ত্রিত্বের পাশাপাশি তিনি দেশটির অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করছেন। 

রনিল বিক্রমাসিংহে মঙ্গলবার দেশটির পার্লামেন্টে বলেছেন, দেশটির নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য—খাদ্য, জ্বালানি এবং সার কেনার জন্য এই অর্থ প্রয়োজন হবে। গত মে মাসেই শ্রীলঙ্কা ইতিহাসে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের কাছে খেলাপি হিসেবে চিহ্নিত হয়। 

বিক্রমাসিংহে বলেন, এই ৫০০ কোটি ডলারের মধ্যে জ্বালানি আমদানি করতে প্রয়োজন ৩৩০ কোটি ডলার, ৯০ কোটি ডলার প্রয়োজন খাদ্যদ্রব্য আমদানি করতে, ৬০ কোটি ডলার প্রয়োজন প্রয়োজনীয় সার আমদানি করতে এবং ২৫ কোটি ডলার প্রয়োজন রান্নায় ব্যবহৃত সিলিন্ডার গ্যাস আমদানি করতে। 

বিক্রমাসিংহে পার্লামেন্টে বলেন, ‘বিপুলসংখ্যক লোক খাদ্যের অভাবে ভুগতে পারে। এ জন্য আমরা খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি চালু করতে যাচ্ছি। যাদের কোনো আয় নেই তারাও এই কর্মসূচির আওতায় খাবার পাবেন। আমরা দেশের বিভিন্ন মন্দির এবং গির্জায় লঙ্গরখানা খুলতে পারি সহায়তার জন্য। এ ক্ষেত্রে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’ 

তবে সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশটি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল–আইএমএফের সঙ্গে বেইলআউট বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। 

বিক্রমাসিংহে জানিয়েছেন, জাতিসংঘ শ্রীলঙ্কাকে সহায়তা দিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন জানাবে এবং এরই মধ্যে শ্রীলঙ্কাকে ৪ দশমিক ৮ কোটি ডলারের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার অঙ্গীকার করেছে। ভারতের এক্সিম ব্যাংকও সার কিনতে শ্রীলঙ্কাকে ৫ দশমিক ৫ কোটি ডলারের ঋণ সহায়তা দিচ্ছে। 





Source link