সিধু মুসওয়ালা হত্যাকাণ্ডের অন্যতম শুটারসহ গ্রেপ্তার ২ 

20


পাঞ্জাবি গায়ক সিধু মুসওয়ালা হত্যাকাণ্ডের অন্যতম শুটারসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল রোববার দিল্লি পুলিশ গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণুইয়ের দলের সদস্য অঙ্কিত শীর্ষাকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তাঁকে গ্রেপ্তারের সময় তাঁর কাছ থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অঙ্কিত শীর্ষাসহ সিধু মুসওয়ালা হত্যার অন্যতম আসামি শচীন ভিওয়ানিকেও এদিন গ্রেপ্তার করা হয়। দিল্লির কাশ্মীর গেট এলাকার একটি বাসস্ট্যান্ড থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করে দিল্লি পুলিশ। শচীন ভিওয়ানি সিধু মুসওয়ালা হত্যায় জড়িতদের আশ্রয় দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেছে। 

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তারের সময় তাঁদের দুজনের কাছ থেকে একটি ৯ এমএম বোর পিস্তল ও ১০টি কার্ট্রিজ এবং পয়েন্ট ৩ মিলিমিটার বোর পিস্তল ও ৯ রাউন্ড তাজা কার্ট্রিজ উদ্ধার করা হয়। 

দিল্লি পুলিশের বিশেষ কমিশনার হারগোবিন্দার সিং এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, হরিয়ানার সোনিপাত এলাকার বাসিন্দা অঙ্কিত সিধু মুসওয়ালা হত্যাকাণ্ড ছাড়াও আরও দুটি হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে অভিযুক্ত। এই দুটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে রাজস্থানে। গ্রেপ্তারকৃত অন্যতম আসামি শচীন ভাওয়ানিও বেশ কয়েকটি ঘৃণ্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত। 

পুলিশ কমিশনার আরও জানিয়েছেন, শচীনই সিধু মুসওয়ালা হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সমন্বয়কারী হিসেবে কাজ করেছেন। 
 
এর আগে, গত ২৯ মে কংগ্রেস নেতা এবং পাঞ্জাবি গায়ক শুভদ্বীপ সিং সিধু ওরফে সিধু মুসওয়ালাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হন আরও দুজন। পাঞ্জাব সরকার মুসওয়ালাসহ ৪২৪ জনের নিরাপত্তা প্রত্যাহার করার একদিন এই ঘটনা ঘটে। 

ঘটনার দিন সিধু এবং তাঁর দুই বন্ধু একটি জিপে করে পাঞ্জাবের মনসা জেলার জওহর কে গ্রামে যাওয়ার সময় হামলার ঘটনা ঘটে। সিধুর গাড়ি লক্ষ্য করে অনেকগুলো গুলি করা হয়। পরে তাঁকে গাড়ির ভেতরে সিটে পড়ে থাকতে দেখা যায়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 





Source link