রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র: ব্লিংকেন

32


বাংলাদেশসহ এই অঞ্চল থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের যুক্তরাষ্ট্রে পুনর্বাসন উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়াতে যুক্তরাষ্ট্র কাজ করছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রোহিঙ্গা নিপীড়নের পাঁচ বছরপূর্তি উপলক্ষে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা জানিয়েছেন। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ইউএনবি।

বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিজে) গাম্বিয়ার মামলা সমর্থন করার পাশাপাশি মিয়ানমারের পরিস্থিতি সম্পর্কে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সুপারিশকে সমর্থন করবে যুক্তরাষ্ট্র।’

চলতি বছরের মার্চে অ্যান্টনি ব্লিংকেন রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিপীড়নকে ‘গণহত্যা’ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, ‘সম্প্রতি গণতন্ত্রপন্থী এবং বিরোধী নেতাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে মিয়ানমারের সামরিক সরকার। এটি মিয়ানমারের জনজীবনের প্রতি সেনাবাহিনীর চরম অবহেলার সর্বশেষ উদাহরণ।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেছেন, ‘মিয়ানমারের সামরিক শাসকদের ক্রমবর্ধমান সহিংসতা দেশটির মানবিক পরিস্থিতিকে আরও বিপর্যস্ত করে তুলছে, বিশেষ করে রোহিঙ্গাসহ জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের জীবনকে বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।’

যুক্তরাষ্ট্র ২০১৭ সাল থেকে রোহিঙ্গাদের সমর্থন দিয়ে আসছে। দেশটি বলেছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গারা নিরাপদে স্বদেশে ফিরতে পারবে না।

ইতিমধ্যে মিয়ানমার, বাংলাদেশ ও এই অঞ্চলের অন্যান্য জায়গায় থাকা ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের জন্য যুক্তরাষ্ট্র ১৭০ কোটি ডলারেরও বেশি সহায়তা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া শুরু করে রোহিঙ্গারা। এর আগে থেকেই বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছিল চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা। সব মিলিয়ে এখন ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের শিবিরগুলোতে রয়েছে। 





Source link