রাজ্যসভা নির্বাচনে কোণঠাসা কংগ্রেস

28


ভারতে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী হাওয়া। দেশটির ১৫টি রাজ্যের ৫৭টি কেন্দ্রে রাজ্যসভা অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন ১০ জুন। এসব কেন্দ্রের মধ্যে খাতায় কলমে এবং অন্যান্য বিচারে অন্তত ১০টি কেন্দ্রে কংগ্রেসের জয় প্রায় নিশ্চিত। তবে সেই জয় ছিনিয়ে নিতে মরিয়া ভারতীয় জনতা পার্টি-বিজেপিও।

এরই মধ্যে দেশটির রাজ্যে রাজ্যে শুরু হয়েছে কংগ্রেস ঘর ভাঙানোর খেলা। দলের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মী বিশেষ করে বিধায়কদের নিজেদের দলে টানতে নানা কৌশল অবলম্বন করেছে বিজেপি। বিদ্রোহী-ক্ষুব্ধ বিধায়কদের দলে টেনে কংগ্রেসকে আরও বেশি কোণঠাসা করে ফেলতে চায় বিজেপি। সদ্য সমাপ্ত আসামের রাজ্যসভা নির্বাচনে এমন কৌশলে অনেকটাই সফল বিজেপি। এই সাফল্যের আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে অন্যান্য রাজ্যেও কংগ্রেসের ঘর ভাঙতে চায় বিজেপি। 

ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভার প্রতিনিধিদের নির্বাচন করে থাকেন দেশটির রাজ্যগুলোর বিধায়কেরা। দলের নির্দেশ মেনে দলীয় প্রতিনিধিকেই ভোট দেওয়ার নিয়ম প্রচলিত ভারতে। ফলে ফ্লোর ক্রসিং বা ক্রস ভোটের সম্ভাবনা কম। কিন্তু তারপরও রাজ্যে রাজ্যে ক্রস ভোট বা ভোট নষ্ট করে দলীয় প্রার্থীকে হারানোর একাধিক উদাহরণ রয়েছে। 

বিশেষ করে একটি রাজ্যের একাধিক আসনে রাজ্যসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে বিরোধীদেরও জয়ের সম্ভাবনা থাকে। সেই সম্ভাবনা মাথায় রেখেই কংগ্রেসের ক্ষুব্ধদের ক্রস ভোটের দিকে নিয়ে গিয়ে রাজস্থান, হরিয়ানা, কর্ণাটক ও মহারাষ্ট্রে কংগ্রেসকে হারানোর ছক কষছে বিজেপি। তাই সংখ্যার হিসেবেও হার নিশ্চিত বুঝেও প্রার্থী দিয়েছে তাঁরা। 

কংগ্রেস মুখপাত্র রণদ্বীপ সিং সুরজেওয়ালার দাবি, দল ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। কিন্তু বাস্তবতা বলছে রাজ্যসভার প্রার্থী বাছাই নিয়ে কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ কোন্দল তুঙ্গে। আর এরই ফায়দা নিতে মরিয়া বিজেপি। 





Source link