ভারত-চীন সীমান্তের নিষিদ্ধ এলাকায় পার্বতীর অবতার, বিয়ে করবেন শিবকে!

21


ভারত-চীন সীমান্তের একটি সংরক্ষিত এলাকায় অবস্থান নিয়েছেন উত্তর প্রদেশ রাজ্যের লক্ষ্ণৌয়ের এক নারী। নিজেকে তিনি দাবি করছেন দেবী পার্বতীর জাতিস্মর। কৈলাস পর্বতের অধিপতি ভগবান শিবকে বিয়ে করতে চান!

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সীমান্তের কাছাকাছি নাভিধং একটি সংরক্ষিত এলাকা। এখানে অবস্থান করার বৈধতা নেই। পিথোরাগড়ের এসপি লোকেন্দ্র সিং বলেছেন, পুলিশের একটি দল হরমিন্দর কাউর নামে ওই নারীকে সরাতে গিয়েছিল। কিন্তু ওই নারী দাবি করছেন পূর্বজন্মে পার্বতী ছিলেন। তারই পুনর্জন্ম হয়েছে। তাঁকে এখান থেকে সরালে আত্মহত্যা করবেন। পুলিশ তখন হতাশ হয়ে ফিরে এসেছে।

এসপি বলেন, ‘তবে, আমরা তাঁকে জোর করে ধারচুলায় নামানোর জন্য একটি বড় দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

এসপি লোকেন্দ্র সিংয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, হরমিন্দর কাউর নামের ওই নারী উত্তর প্রদেশ রাজ্যের আলিগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা। ১৫ দিনের অনুমতি নিয়ে মায়ের সঙ্গে গুঞ্জিতে গিয়েছিলেন। কিন্তু ২৫ মে অনুমতির মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও সংরক্ষিত এলাকা ছেড়ে যেতে অস্বীকার করেন।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, দুই সাব-ইন্সপেক্টর এবং একজন পরিদর্শকের সমন্বয়ে তিন সদস্যের একটি দলকে সংরক্ষিত এলাকা থেকে ওই নারীকে ফিরিয়ে আনার জন্য পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু খালি হাতে ফিরতে হয়েছে। আমরা তাঁকে ফিরিয়ে আনার জন্য চিকিৎসকসহ ১২ সদস্যের একটি বড় পুলিশ দল পাঠানোর পরিকল্পনা করেছি।

ওই নারীকে মানসিকভাবে সুস্থ বলে মনে করছে না পুলিশ। তাঁর দাবি তিনি দেবী পার্বতীর অবতার এবং ভগবান শিবকে বিয়ে করতে এসেছেন। 

উল্লেখ্য, গুঞ্জি এলাকাটি কৈলাস-মানসরোবরের পথে।





Source link