বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা সৌদি আরবের

28


বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে সৌদি আরব। ৫০০ মিটার (১৬৪০ ফুট) উচ্চতার টুইন টাওয়ার নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে দেশটি। উচ্চতা ৫০০ মিটার হলেও ভবনটি গড়ে উঠবে মূল কাঠামোর আশপাশের প্রায় কয়েক কিলোমিটার জায়গা নিয়ে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের জনবিরল প্রদেশ তাবুকের বুকে নিওম একটি মেগাসিটি গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। ৫০০ বিলিয়ন ডলার ওই উন্নয়ন প্রকল্পেই এই টুইন টাওয়ার নির্মাণের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ৫০০ মিটার উচ্চতার পাশাপাশি এই টুইন টাওয়ারের ভিত্তি গড়ে তোলা হবে কয়েক কিলোমিটার জায়গা নিয়ে। 

প্রস্তাবিত পরিকল্পনা অনুসারে, এই টুইন টাওয়ারে আবাসিক, ব্যবসায় এবং অন্যান্য সব সুবিধা থাকবে। এরই মধ্যে প্রকৌশলীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বিল্ডিংটির নকশা নিয়ে কাজ করতে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা এই টুইন টাওয়ার তৈরি করতে খরচ হতে পারে ২০০ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি। 

এর আগে, ২০১৭ সালে নিওম মেগাসিটি প্রকল্পের ঘোষণা দেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। তবে মাঝে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে প্রকল্পের কাজ অনেকটা স্থবির হয়ে গিয়েছিল। এই প্রকল্পটি সৌদি পেট্রো–ডলারের পাশাপাশি দেশটিতে বিপুল বিদেশি বিনিয়োগও এনেছে। 

নিওম প্রকল্পের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নাদমি আল-নাসর এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেছেন, ‘আমরা প্রস্তুত হয়েই এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সামনে আনব।’ তবে, আল-নাসর জানিয়েছেন, এখন বিল্ডিংটির যে উচ্চতা ধারণা করা হচ্ছে তার চেয়ে খানিকটা কমবেশি হতে পারে। 

নিওমের সামগ্রিক পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক সংস্থা মরফোসিস। মরফোসিসের মালিক টমাস মেইন—যিনি যুক্তরাষ্ট্রের আর্কিটেকচার জগতে ‘দ্য ব্যাড বয়’ নামে পরিচিত, তিনিও এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে আগ্রহী নন।

এর আগে, সৌদি প্রিন্স আলওয়ালিদ বিন তালালও বিশ্বের সর্বোচ্চ ভবন বুর্জ খলিফার চেয়ে উঁচু ভবন নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কাজ শুরুও হয়েছিল। তবে সেই বিল্ডিংটির কাজ মাঝপথে এসে থেমে যায়। ফলে অসমাপ্ত থাকে সেই বিল্ডিং। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিশ্বের সর্বোচ্চ ভবন বুর্জ খলিফার উচ্চতা প্রায় ৮৩০ মিটার। 





Source link