পুলিশের গুলিতে নিহত জেল্যান্ড ওয়াকারের মরদেহে পরানো হয়েছিল হাতকড়া

21


পুলিশের গুলিতে নিহত কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ জেল্যান্ড ওয়াকারের মরদেহে পরানো হয়েছিল হাতকড়া। হাতকড়া পরানো অবস্থায় তাঁর মরদেহ মেডিকেল এক্সামিনারের অফিসে আনা হয়। ময়নাতদন্ত রিপোর্টে বিষয়টি উঠে এসেছে। আজ বুধবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে সিএনএন। 

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, জেল্যান্ডের মরদেহে হাতকড়া পরানো অবস্থায় ছিল। তাকে হত্যা করার পর হাতকড়া পরানো হয়।ময়নাতদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন ওহাইও ব্যুরো অফ ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশনের কাছে হস্তান্তর করা হবে।   

প্রসঙ্গত, গত ২৭ জুন যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইওর আকরন শহরে গাড়ি না থামানোর কারণে জেল্যান্ড ওয়াকারকে ১৮ মিনিট ধাওয়া করে পুলিশ। এরপর গাড়ি থেকে নামার পর তাঁকে লক্ষ্য করে উপর্যুপরি গুলি করে পুলিশের আট কর্মকর্তা। তাঁর শরীরে ৬০ টির বেশি গুলির আঘাত পাওয়া যায়। 

এ ঘটনার বেশ কয়েকটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, গাড়ি থেকে নেমে গিয়ে দৌড়াচ্ছেন ওয়াকার। পুলিশ উপর্যুপরি গুলি করছে। 

এ প্রসঙ্গে পুলিশ বলছে, তাঁদের কাছে মনে হয়েছিল ওয়াকার পুলিশের দিকে আসছেন এবং তাঁর কাছে অস্ত্র রয়েছে। পরে তাঁর গাড়ি থেকে একটি অস্ত্র উদ্ধারও করা হয়। 

তবে ওয়াকারের আইনজীবী ববি ডিকেলো বলছেন, ‘এমন কোনো প্রমাণ নেই। ছোট্ট একটি ট্রাফিক আইন ভঙ্গের কারণে তাঁকে তাড়া করছিল পুলিশ।’ 

এদিকে, কৃষ্ণাঙ্গ জেল্যান্ড ওয়াকারের হত্যার বিচারের দাবিতে আকরনের রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছে মানুষ। ২০২০ সালে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যার মতোই এ হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার দাবি করেন তারা। এ সময় বহুল আলোচিত পতাকা ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ ওড়ানো হয়। 





Source link