পিকে হালদারের ৮৮টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সন্ধান 

35


অর্থ পাচারের অভিযোগে ভারতে গ্রেপ্তার প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পিকে হালদারের প্রায় ৯০টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সন্ধান পাওয়া গেছে। ভারতের কেন্দ্রীয় আর্থিক দুর্নীতির তদন্তকারী প্রতিষ্ঠান এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট–ইডির গোয়েন্দারা এই তথ্য পেয়েছেন। এদিকে, পিকে হালদার ও তাঁর সহযোগীদের জামিন আবেদন নাকচ করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট বা ইডি-র আইনজীবী অরিজিৎ চক্রবর্তী এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

আজ মঙ্গলবার সকালে পিকে হালদার ও তাঁর সহযোগীদের কলকাতার নগর দায়রা আদালতে হাজির করা হলে বিচারক জীবন কুমার সাধু তাঁদের জামিন আবেদন নাকচ করেন। এ সময় আদালত তাঁদের আরও ১৫ দিনের জন্য জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গত ২১ জুন তাঁদের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিলেন বিশেষ সিবিআই আদালত। সরকার পক্ষের বক্তব্য, পিকে এবং তাঁর সঙ্গীদের কাছ থেকে প্রচুর অর্থ ও বেনামি সম্পত্তির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এখনো তদন্ত চলছে। তাই জামিনের বিরোধিতা করা হয়।

তার আগে, গত ১৪ মে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ইডি কর্মকর্তারা পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পিকে এবং তাঁর সহযোগীদের বিপুল সম্পত্তির হদিস পান। ওই সময় পিকে হালদারের সঙ্গে তাঁর ভাই প্রাণেশ হালদার, ঘনিষ্ঠ সহযোগী স্বপন মৈত্র, উত্তম মৈত্র, ইমাম হোসেন ওরফে ইমন হালদার ও আমানা সুলতানা ওরফে শর্মী হালদারকে।

এরই মধ্যে ৮৮টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ছাড়াও প্রচুর নগদ অর্থ এবং সম্পত্তির হদিস পেয়েছেন গোয়েন্দারা। এমনকি, বিদেশেও পিকে হালদারের সম্পত্তি রয়েছে বলেও তদন্তে জানা গেছে। তাই আসামিরা জামিন পেলে তথ্য প্রমাণ লোপাট করতে পারেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন সরকারি আইনজীবীরা।





Source link