জ্বালানি চাহিদা মেটাতে আবারও পরমাণু বিদ্যুতে ফেরার ইঙ্গিত জাপানের

31


জাপানে বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে আবারও পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ফেরার কথা জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা। তিনি দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের আবারও তুলনামূলক ছোট আকারের ও নিরাপদ পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে বলেছেন। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে। 

স্থানীয় সময় আজ বুধবার কিশিদা গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন রোধে দেশটির প্রচেষ্টাকে শক্তিশালী করার বিষয়ে একটি ‘গ্রিন ট্রান্সফরমেশন’ সম্মেলনে বক্তৃতার সময় এই কথা জানান। জাপান ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নিরপেক্ষতা অর্জনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। 

কিশিদা বলেন, ‘বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে আসন্ন সংকট কাটিয়ে উঠতে আমাদের অবশ্যই আগামী বছরগুলোতে সম্ভাব্য সমস্ত নীতিগুলো একত্রে পর্যালোচনা করতে হবে এবং যেকোনো জরুরি অবস্থা মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত করার জন্য আমাদের সর্বোচ্চ পদক্ষেপ নিতে হবে।’ 

২০১১ সালের মার্চে সুনামিতে জাপানের ফুকুশিমা পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিপর্যয়ের পর দেশটি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র বৃদ্ধির জায়গা থেকে সরে এসেছিল। ওই দুর্ঘটনার পর দেশটি বেশ কয়েকটি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছিল। কিশিদার নতুন এই নির্দেশনার মধ্যে দিয়ে দেশটি আবারও নতুন করে পরমাণু বিদ্যুতের ওপর নির্ভরতা বাড়াতে যাচ্ছে বলেই ধারণা বিশ্লেষকদের।

ফুমিও কিশিদা জানিয়েছেন, তাঁর সরকার বিদ্যমান চুল্লিগুলোকে আরও দীর্ঘ মেয়াদে ব্যবহার করার দিকে নজর দেবে। তবে এর আগে, জাপান সরকার জোর দিয়ে বলেছিল, তাঁরা ফুকুশিমা পারমাণবিক বিপর্যয়ের পর দেশটি নতুন করে প্ল্যান্ট নির্মাণ বা পুরোনো চুল্লি প্রতিস্থাপনের কথা বিবেচনা করছে না।





Source link