এনডিটিভি কিনে নিচ্ছে আদানি গ্রুপ

37


ভারতের সবচেয়ে নিরপেক্ষ টেলিভিশন চ্যানেল হিসেবে পরিচিত এনডিটিভি (নিউ দিল্লি টেলিভিশন লিমিটেড) কিনে নিতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘খাস দোস্ত’ হিসেবে পরিচিত শিল্পপতি গৌতম আদানির নিয়ন্ত্রণে। আদানির এএমজি মিডিয়া নেটওয়ার্ক এনডিটিভির ২৯ দশমিক ১৮ শতাংশ শেয়ার কিনে নেওয়ার কথা দাবি করে এনডিটিভিকে নোটিশ দিয়েছে। 

আদানি গ্রুপ এনডিটিভির ১ কোটি ৬৭ লাখ ৬২ হাজার ৫৩০টি সম্পূর্ণ ‘পেইড আপ ইক্যুইটি’ শেয়ারের মালিকানা নেওয়ার লক্ষ্যে শেয়ার প্রতি ২৯৪ রুপি দরে ৪৯৩ কোটি রুপি বিনিয়োগেরও প্রস্তাব দিয়েছে। এই বিষয়ে এনডিটিভির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এ বিষয়ে তাঁদের সঙ্গে কোনো কথাই হয়নি। তাঁরা সাংবাদিকতাকে মূলমন্ত্র ধরে নিয়েই সাংবাদিকতার আদর্শেই অটল থাকবেন। আদানির এনডিটিভির নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টার কড়া সমালোচনা শুরু হয়েছে দেশ জুড়ে। কংগ্রেসের মতে, গণমাধ্যমকে দাবিয়ে রাখার নির্লজ্জ চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি।

ভারতে মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পরও প্রণয় রায় ও রাধিকা রায়ের পরিচালনায় নিজেদের আদর্শে অটল রয়েছে এনডিটিভি। বেশির ভাগ চ্যানেল ক্ষমতা ও অর্থের কাছে মাথানত করেছে বলে অভিযোগ উঠলেও আর্থিক সংকটেও নিজেদের খবরে কোনো আপস করতে চায়নি এই গণমাধ্যমটি। কিন্তু এবার শিল্পপতি আদানিদের নজরে পড়েছে এনডিটিভির মালিকানায়। 

এনডিটিভি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আদানি গ্রুপের নিয়ন্ত্রণাধীন বিশ্বপ্রধান কমার্শিয়াল প্রাইভেট লিমিটেড (ভিসিপিএল) তাঁদের ২৯ দশমিক ১৮ শতাংশ মালিকানা কিনে নেওয়ার দাবি করেছে। বহু আগে, আরআরপিআর নামে এক সংস্থা থেকে ৪০৯ কোটি রুপি ঋণ নিয়েছিল এনডিটিভি। ভিসিপিএলের দাবি, সেই সংস্থার ৯৯ শতাংশ মালিকানা তাঁরা কিনে নিয়েছেন। তাই এনডিটিভির ২৯.১৮ শতাংশ শেয়ার এখন তাঁদের দখলে। 

তবে এ বিষয়ে প্রণয়, রাধিকা বা এনডিটিভির কোনো প্রতিনিধির সঙ্গে কারও কথা হয়নি বলে জানানো হয়েছে এনডিটিভির তরফ থেকে। সেই সঙ্গে দাবি করা হয়েছে, ঋণ ও মালিকানা কখনো এক হতে পারে না। তাই এনডিটিভির সাফ কথা, এনডিটিভি কোনো চাপের কাছে নতিস্বীকার করেনি, ভবিষ্যতেও করবে না। 

এদিকে, হঠাৎ করে স্টক এক্সচেঞ্জে এনডিটিভির শেয়ারের দাম বেড়ে গেছে। গত মঙ্গলবার মুম্বাই স্টক এক্সচেঞ্জে এনডিটিভির শেয়ার প্রতি দাম ছিল ৩৬৬ রুপি ২০ পয়সা। বুধবার তা বেড়ে পৌঁছেছে ৩৮৮ টাকা ২০ পয়সায়। কিন্তু আদানিরা অনেক কম দামে এনডিটিভির শেয়ার কিনতে চাইছে। 

এই অবস্থায় ভারতের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন এনডিটিভির সমর্থনে নিজেদের মত প্রকাশ করছেন। সামাজিক গণমাধ্যমেও তাঁর প্রভাব পড়ছে। প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়রাম রমেশের অভিযোগ, ‘একটি সুপরিচিত টিভি নিউজ নেটওয়ার্কের দখল নেওয়ার খবর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতার কেন্দ্রীভূতকরণ ছাড়া আর কিছুই নয়। স্বাধীন গণমাধ্যমকে দাবিয়ে রাখার একটি নির্লজ্জ পদক্ষেপ।’ 





Source link