আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, আল-কায়েদার নজরে আসাম

7


ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে কট্টর জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া উঠছে এমন তথ্য সামনে এনেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাজ্যের রাজধানী গুয়াহাটি রাজ্য সচিবালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আসাম জঙ্গিদের হট বেড হয়ে উঠেছে। এখন আর সন্দেহের অবকাশ নেই, বিষয়টি প্রমাণিত।’

হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেন, ‘আনসারুল্লাহ বাংলা টিম (এবিটি)-এর সদস্যরা সক্রিয়, আল-কায়দার রেডারেও রয়েছে আসাম।’ এ সময় তিনি রাজ্যের জন্য এই বিষয়টি উদ্বেগজনক বলেও স্মরণ করিয়ে দেন।

আসামে সাম্প্রতিককালে বেশ কয়েকজন এবিটি সদস্য ধরা পড়েছে বলে দাবি করেছে আসাম রাজ্য পুলিশ। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টকে হাতিয়ার করে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন আসামের মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর স্পষ্ট উচ্চারণ, ‘আসামে বাড়ছে জিহাদি কার্যকলাপ। তাই কড়া হাতে দমন করা হচ্ছে জঙ্গিবাদী কার্যকলাপ।’ 

এদিকে, বৃহস্পতিবার রাজ্যের মরিগাঁও জেলার মৈরাবারির জমিউল হুদা মাদ্রাসায় উচ্ছেদ অভিযান চালায় আসাম পুলিশ। পুলিশের অভিযোগ, এই মাদ্রাসাও জঙ্গি তৈরির কারখানায় পরিণত হয়েছিল। মুখ্যমন্ত্রী মন্তব্যের আগেই অবশ্য মেরাবারির জমিউল হুদা মাদ্রাসায় বুলডোজার চালানো হয়। ২৮ জুলাই এই মাদ্রাসার প্রধান মুফতি মুস্তাফাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। একই সঙ্গে বরপেতা, বঙ্গাইগাঁও, গুয়াহাটি ও মরিগাঁও থেকে আরও ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০১৮ সালে স্থাপিত মাদ্রাসাটি গুঁড়িয়ে দেওয়া প্রসঙ্গে মরিগাঁওয়ের পুলিশ সুপার (এসপি) অপর্ণা এন জানান, জেলা প্রশাসন, রাজ্যের পূর্ত বিভাগ এবং অন্যান্য সংস্থার অনুমতি নিয়েই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে। মাদ্রাসাটি থেকে বহু আপত্তিকর প্রচার পত্র, ব্যাংকের চেক থেকে শুরু করে জেহাদি প্রশিক্ষণের প্রমাণ মিলেছে বলেও জানান তিনি।





Source link